kalerkantho

জাদুর রহস্য

হাতি উধাও!

প্রাচীনকাল থেকেই নানা ধরনের জাদু বা ম্যাজিক দেখিয়ে আলোড়ন তুলেছেন জাদুকররা। এমনই কিছু জাদু নিয়ে এই ধারাবাহিক আয়োজন। বর্ণনা করেছেন অমর্ত্য গালিব চৌধুরী

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



হাতি উধাও!

জাদুকর চোখের সামনে কোনো ছোটখাটো বস্তুকে অদৃশ্য করে দিলেন বা শূন্য থেকেই তাঁর হাতে উদয় হলো কোনো পাখি বা রুমাল—এমন জাদু হরহামেশাই দেখা যায়। এই জাদুগুলোকে স্রেফ হাতের কারসাজি হিসেবে ধরে নিতেই আমরা অভ্যস্ত। কিন্তু তাই বলে জলজ্যান্ত একটা হাতিকে যদি কেউ অদৃশ্য করে দেন, তাও চোখের সামনে; তাহলে একে কিন্তু হাতের কারসাজি বলে নিজেকে প্রবোধ দেওয়া যাবে না মোটেই।

প্রায় শখানেক বছর আগের কথা। যুক্তরাষ্ট্রের বিখ্যাত জাদুকর হ্যারি হুডিনি নিউ ইয়র্কের হিপোড্রোম থিয়েটারে শত শত দর্শকের সামনে বেমালুম গায়েব করে দেন একটা আট ফুট লম্বা পাঁচ টনি হাতিকে। দর্শক বিস্ময়ে যেন পাথর হয়ে গেল। অবশ্য হুডিনি ঠিক চোখের সামনে গায়েব করেননি হাতিটাকে। প্রথমে দর্শকদের সামনেই হাতিটাকে ঢোকানো হয় দুই মুখ খোলা মস্ত এক বাক্সে। বাক্সটা আবার বড় কয়েকটা চাকার ওপর বসানো ছিল, যাতে দর্শকরা বুঝতে পারেন নিচে কোনো গোপন কুঠরি নেই। হাতিটাকে বাক্সে পুরে ফেলার পর গোটা বাক্স ঘুরিয়ে দর্শকদের মুখোমুখি করা হয়। তারা দিব্যি দেখতে পাচ্ছিল বাক্সের মধ্যে হাতি দাঁড়িয়ে আছে।

এরপর বন্ধ করে দেওয়া হয় বাক্সের দুই পাশের দরজা। কয়েক মিনিট অপেক্ষা করার পর যখন সামনের দরজা খুলে দেওয়া হলো, সবাই তো থ! বিশাল বাক্স পুরোটাই ফাঁকা, হাতির নামগন্ধও নেই!

কিভাবে সম্ভব এত বড় একটা হাতিকে অদৃশ্য করে দেওয়া। বহু বছর এর উত্তর পাওয়া যায়নি। জাদু বিশেষজ্ঞ জিম স্টেইনমেয়ার অবশ্য পরে এর রহস্য উন্মোচন করেন। হাতিটাকে হুডিনি মোটেও কোনো জাদুমন্ত্রবলে অদৃশ্য করেননি। পুরোটা সময়ই হাতিটা ওই বাক্সে ছিল।

তাহলে দর্শকরা কেন দেখতে পেলেন না? এর উত্তর খুব সহজ। বাক্সটা আসলে দুই অংশে বিভক্ত—বাক্সের দুই প্রান্তের দরজা বন্ধ করে দেওয়ার পর হাতির প্রশিক্ষক, যিনি কিনা হাতিটার সঙ্গেই বাক্সে ঢুকেছিলেন, দ্রুত হাতিসহ বাক্সের পেছনের অংশে চলে যান। বাক্সের মাঝামাঝি স্প্রিংয়ের সাহায্যে চেপে রাখা ছিল একটা পর্দা, পর্দার রং এমন ছিল যে কেউ ওটা দেখলে ভাববে বাক্সের মধ্য দিয়ে বুঝি স্টেজের পেছনের অংশের দেয়াল দেখা যাচ্ছে। দুই পাশের দরজা বন্ধ করার সঙ্গেই সঙ্গেই এই পর্দা স্প্রিংমুক্ত হয়ে বাক্সটাকে দুই ভাগ করে ফেলত। কাজেই সামনের দরজা খুলে দেওয়ার পর দর্শকরা আসলে স্টেজের পেছনের অংশ নয়, পর্দাটা দেখছিলেন। এই পর্দার পেছনেই বাক্সের অপর অংশে লুকিয়ে ছিল হাতিটা।

হ্যারি হুডিনি এই জাদুটি মাত্র একবারই দেখিয়েছিলেন। বিংশ শতাব্দীর গোড়ার সময়টায় আধুনিক কোনো ক্যামেরা বা অন্য প্রযুক্তি না থাকায় এই সহজ জাদুটি ধরতে পারেনি তখনকার কোনো দর্শক। আধুনিককালে অনেক জাদুকর অবশ্য এ ধরনের জাদু দেখান, তবে সে ক্ষেত্রে নানা রকম অপটিক্যাল ইলিউশন, আয়না প্রভৃতি ব্যবহার করা হয়।


মন্তব্য