kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিচিত্রা

পাঁচ শ রুপিতে হাজতবাস

শাদমান আলম শোভিক   

২ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



পাঁচ শ রুপিতে হাজতবাস

ভারতের তেলেঙ্গানা রাজ্যের মেদাক জেলার সাঙ্গারেড্ডি শহরে অবস্থিত জেলা কারাগারটির বয়স ২২০ বছর। ২০১২ সাল পর্যন্ত জেলা কারাগার হিসেবে এটি ব্যবহূত হলেও এখন একে জাদুঘরে রূপান্তরিত করা হয়েছে।

এর পাশাপাশি কারাগার কর্তৃপক্ষ অদ্ভুত ধরনের একটি উদ্যোগ নিয়েছে। তা হলো, মাত্র ৫০০ রুপিতে এক দিনের জন্য কয়েদি হিসেবে পুরনো কারাগারটিতে থাকার ব্যবস্থা। এই উদ্যোগ তাঁদের জন্যই নেওয়া হয়েছে, যাঁরা কারাগারে বন্দিজীবনের স্বাদ পেতে চান!

এই এক দিনের বন্দিজীবনে বন্দিদের দেওয়া হবে খদ্দর কাপড়ের তৈরি কয়েদিদের নির্দিষ্ট পোশাক, স্টিলের থালা-গ্লাস, একটি মগ, সাবান আর কারাজীবনের জন্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র, যা কারা বিভাগ নির্ধারণ করে। এই ‘কয়েদিদের’ খাবার হিসেবে জেলখানার প্রচলিত খাবারই দেওয়া হবে, যার মধ্যে রয়েছে চাপাতি (এক ধরনের রুটি), ভাত, সবজির তরকারি, মটরশুঁটি, ডাল আর দই। খাবারগুলো নতুন জেলা কারাগারের ক্যান্টিন থেকেই সরবরাহ করা হবে।

যদিও এই এক দিনের কয়েদিদের কোনো ভারি শ্রমের কাজ করতে দেওয়া হবে না, তবে থাকার জায়গাটি নিজেদেরই পরিষ্কার করতে হবে, আর গাছের চারা রোপণ করতে হবে কারা প্রাঙ্গণে। এই বন্দিদশায় বাইরের দুনিয়ার সঙ্গে কয়েদিদের সব ধরনের যোগাযোগ ছিন্ন করে দেওয়া হবে, মোবাইল ফোনও সঙ্গে রাখতে দেওয়া হবে না বলে জানিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ।

কারাগারটি ১৭৯৬ সালে নির্মাণ করা হয়েছিল, হায়দরাবাদের নিজাম বংশের শাসনামলে। জেলখানাটি তিন একরের ওপর অবস্থিত। যার মধ্যে কারাগার ভবনটি আছে প্রায় এক একর জায়গাজুড়ে। এখানে ৯টি পুরুষ আর একটি নারী ওয়ার্ড রয়েছে। প্রায় ২১৬ বছর এটি কারাগার হিসেবে ব্যবহূত হওয়ার পর ২০১২ সালে এখানকার কয়েদিদের সাঙ্গারেড্ডি শহরের বাইরে নতুন কারা ভবনে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। আর পুরনো কারাগারটিকে বানানো হয়েছে জাদুঘর। বর্তমানে প্রদর্শনীর জন্য কারাগারটিতে স্থান পেয়েছে বিভিন্ন সময়ে বন্দি থাকা বিখ্যাত ব্যক্তিদের বিভিন্ন স্মৃতিচিহ্ন, নিজাম বংশের শাসনামলের পুরাকীর্তি, জেলখানার পুরনো নিদর্শন ইত্যাদি।

চলতি বছরের জুন মাসে জাদুঘরটি জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে এখানে একটি শিশু পার্ক এবং আয়ুর্বেদিক কেন্দ্র স্থাপন করার পরিকল্পনাও রয়েছে কারা কর্তৃপক্ষের। এখন প্রতিদিন গড়ে ১৫ থেকে ২০ জন দর্শনার্থীর আগমন ঘটছে। তবে ৫০০ রুপি খরচ করে কারাবরণ করার ব্যাপারে দর্শকদের কাছ থেকে খুব একটা সাড়া মেলেনি এখনো।


মন্তব্য