kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অন্য রকম

বিনা পয়সার দোকান!

সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বিনা পয়সার দোকান!

এমন একটি স্থানের কথা ভাবুন তো, যেখানে গেলে প্রয়োজনীয় সব কিছু হাতের নাগালে পাওয়া যায়? ভাবছেন সুপার মার্কেটের কথা বলছি? একদম না! কারণ ওখানে সুপার মার্কেটের মতো জিনিসপত্র পাওয়ার জন্য কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা খরচ করতে হবে না। বরং সেগুলো বিনা খরচায়ই পেয়ে যাবেন।

শুধু একটু খুঁজে নিতে হবে, এই যা। আবার সামর্থ্য থাকলে অন্যদের জন্য কোনো খাবার বা জিনিসপত্র রেখেও আসতে পারবেন ওখানে। মোদ্দাকথা, একই সঙ্গে দেওয়া ও নেওয়া—দুটির কাজই সেরে ফেলা যায় জায়গাটি থেকে।

আমেরিকার ফায়েভিলের গুড শেফার্ড লুথেরান চার্চের ঠিক পাশেই জেসিকা ম্যাকলার্ডের হাতে গড়ে ওঠা ছোট্ট এই প্যানট্রির অবস্থান। বেশ কিছুদিন আগের কথা। এ সময় জেসিকার নজর পড়ে ফায়েভিলের নতুন কিছু গ্রন্থাগারের দিকে। যেগুলো থেকে মানুষরা তাদের ইচ্ছামতো বিনা মূল্যে বই নিয়ে যেতে পারে। বেশ জনপ্রিয়তাও পায় ওগুলো। সেই থেকে জেসিকার মাথায় ঘুরতে থাকে অন্য রকম একটি চিন্তা। বইয়ের বদলে খাবার আর নানা রকম জিনিসপত্র বিনা মূল্যে দেওয়ার পরিকল্পনা করেন তিনি।

এর জন্য অবশ্য দরকার ছিল দান করতে চায় এমন মানুষদের। সেটির অভাব অবশ্য হয়নি। প্রথমে থ্রিভেন্ট ফিনান্সিয়াল নামে এক প্রতিষ্ঠান তাঁকে ২৫০ ডলার দান করে। এর পর থেকে বিভিন্ন মানুষের সাহায্য নিয়ে একটু একটু করে নিজের চিন্তা বাস্তবে রূপ দিতে শুরু করেন জেসিকা। গুড শেফার্ড লুথেরান চার্চের পাশেই স্থাপন করেন নিজের ছোট্ট প্যানট্রি বা ভাঁড়ারটি। সেটি এ বছরের ১০ মের ঘটনা। তখন কেবল একটি বাক্সে অল্প কিছু জিনিস রাখা ছিল। কয়েক মাসের ভেতরেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে জেসিকার প্যানট্রির পেইজে পড়েছে প্রায় ১০ হাজার লাইক। যত দিন গড়াচ্ছে হু হু করে বাড়ছে এর জনপ্রিয়তা।

এমনকি জেসিকার এই অভাবনীয় কাজে অনুপ্রাণিত হয়ে ওকলাহোমা ও দক্ষিণ ফায়েভিলেও তৈরি হয়েছে বিনা মূল্যের প্যানট্রি। এদিকে মানুষের ব্যাপক সাড়ায় ভারি খুশি জেসিকা মনে করেন, এমন উদ্যোগ সামাজিক নানা রকম সমস্যাকে দূর করতে সাহায্য করে। পিনাট বাটার, জেলি, নারীদের স্বাস্থ্যসংক্রান্ত জিনিসপত্র ও ডায়াপারের চাহিদা বেশি বর্তমানে জেসিকার প্যানট্রিতে। তবে স্কুলের কাছেই প্যানট্রির অবস্থান হওয়ায় বাচ্চাদের জন্য দরকারি জিনিসপত্রও রাখা শুরু করেছেন জেসিকা এখন।


মন্তব্য