kalerkantho


বরাত জোরে

গ্রিমউডের ভাগ্য!

১৩ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



গ্রিমউডের ভাগ্য!

ছু কিছু লো

কের ভাগ্য দেখে হিংসা হবে আপনার। তাঁদের এমনই ভাগ্য যে অনেক উঁচু কোনো দালান থেকে পড়ে কিংবা গুলি খেয়েও দিব্যি বেঁচে যায়।

কেউ আবার নিশ্চিত জেল-জরিমানার কবল থেকেও রেহাই পেয়ে যায় নেহাত বরাত জোরে। লিখেছেন আনিকা জীনাত

 

এবারের ঘটনাটি ইংল্যান্ডের উইন্ডারমেয়ারের বাবুর্চি এডওয়ার্ড গ্রিমউডকে নিয়ে। হূদয় ভঙ্গের যন্ত্রণা সইতে না পেরে ১৯৭২ সালে ২৩ বছরের গ্রিম নিজেকে শেষ করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। আত্মহত্যা করার উদ্দেশ্যে মালিকের ভ্যানগাড়ি নিয়ে পাহাড়ের কিনারে চলে গেলেন তিনি। তারপর ইচ্ছা করেই নিচের দিকে চালিয়ে দিলেন। নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রেলিং ভেঙে পাহাড়ের গা বেয়ে পিছলে নিচে নামতে লাগল গাড়িটি। শেষে একটি গাছের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে থেমে গেল। ভ্যানটির ক্ষতি হলেও গ্রিমের জীবন রক্ষা পেল। সামান্য কাটাছেঁড়া ছাড়া তেমন কিছুই হলো না তাঁর।

ভাগ্যের জোরে প্রাণে বেঁচে যাওয়ার পর তিন মাইল দূরের একটি পুলিশ স্টেশনে গিয়ে সব কিছু খুলে বললেন। পুলিশ তাঁকে দেরি না করে কোর্টে চালান করল। কোর্ট তাঁকে এক বছরের জন্য নজরদারিতে থাকতে বলল। জরিমানা হলো তাঁর মালিকের ভ্যানগাড়ি, দেয়াল আর রাস্তার পাশের রেলিং নষ্ট করার জন্য। সব মিলিয়ে কোর্টে তাঁর জরিমানা হলো মাত্র ২২ পাউন্ড। এদিকে বাঁচার সাধ কার না থাকে! তাই আত্মহত্যা করতে গিয়েও বেঁচে যাওয়ায় এই সামান্য অর্থদণ্ড খুশিই করল গ্রিমউডকে।


মন্তব্য