kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।

বিচিত্রা

জলা উদ্যান

রেদোয়ান হাসান

৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



জলা উদ্যান

চীনের পূর্বের প্রদেশ ঝিজির জিনইয়া শহরের একেবারে মাঝে আছে এক জলাভূমি। এই জলাভূমিতেই উয়ি ও ইয়ায়ু নদী একসঙ্গে মিলিত হয়ে ধারণ করেছে জিনইয়া নাম।

৬৪ একর জমি নিয়ে গড়ে ওঠা এই জলাভূমি পরিচিত ইয়াংউইজিহাউ নামে, যার বাংলা করলে দাঁড়ায় চড়ুইয়ের লেজ। হয়তো পুরো অঞ্চলটিকে দেখলে চড়ুইয়ের লেজের সঙ্গে মিল পাওয়া যায় বলেই এ রকম নামকরণ।

অনেক বছর পর্যন্ত এ এলাকাটি অব্যবহৃত হয়ে পড়ে ছিল। এখানে আসার পথ দুর্গম বলে মানুষের আসা-যাওয়া ছিল না বললেই চলে। এদিকে সবুজে ঢাকা এই জলাভূমি থেকে বালি তুলতে গিয়ে সৌন্দর্যহানির পাশাপাশি জলাভূমিকে খণ্ডিত করে ফেলে বালু উত্তোলনকারীরা। তবে একেবারে ধ্বংস হওয়ার আগেই সরকারিভাবে সংরক্ষিত উদ্যান ঘোষণা করা হয় এলাকাটিকে। এখন এখানে আছে গাছপালা আচ্ছাদিত সিঁড়ি, আঁকাবাঁকা মনোমুগ্ধকর পথ, একটি সর্পিল সেতু, গাছ ঘিরে রাখা চক্রাকার ফাঁকা জায়গা আর বসার জন্য বাঁকানো চেয়ার। উদ্যানের মাঝের পায়ে চলা সর্পিল সেতুটি এর অন্যতম প্রধান আকর্ষণ। নদীর ওপর দিয়ে নদীর মতোই এঁকেবেঁকে এদিক-ওদিক চলে গেছে। আর যোগসূত্র স্থাপন করেছে নদীতীরের ছোট ছোট দ্বীপগুলোর সঙ্গে। সেতুটি যে শুধু উদ্যানের বিভিন্ন অংশকে যুক্ত করেছে তাই না, নদীবিভক্ত শহরের মানুষকেও যুক্ত করেছে। আর এই সেতুর ওপর দিয়ে হাঁটার সময় মানুষ একটু হলেও চলার গতি কমিয়ে দেয় এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য উপভোগের জন্য। উল্লেখ্য, এই জলাভূমি আর উদ্যানসংলগ্ন এলাকাগুলো বন্যার ভয়ে বড় দেয়াল তুলে রাখা হয়েছে। কিন্তু স্থাপত্যবিদরা এসব দেয়াল ভেঙে দিয়ে অন্য উপায়ে বন্যা মোকাবিলার পরামর্শ দিয়েছেন। কেননা দেয়ালগুলো এখানকার অপরূপ দৃশ্যর সঙ্গে ঠিক মানানসই না।

এই জলাভূমিতে মূলত চোখে পড়ে চীন দেশীয় গাছ উইংনাট। যেখানে বাসা বাঁঁধে ইগ্রেট নামের বিপন্ন ও সুন্দর এক ধরনের পাখি। উদ্যানটি সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয় ২০১৪ সালের মে মাসে, এরপর থেকেই এখানে প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটক আসছে।


মন্তব্য