kalerkantho

বদলে যাবে যুদ্ধের চিত্র! মার্কিন সেনার ‘পকেটে’ বিশ্বের ক্ষুদ্রতম ড্রোন!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ মার্চ, ২০১৯ ২০:৩২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বদলে যাবে যুদ্ধের চিত্র! মার্কিন সেনার ‘পকেটে’ বিশ্বের ক্ষুদ্রতম ড্রোন!

গত দুএক বছরে লাফিয়ে বেড়েছে গোটা পৃথিবীর সামরিক ব্যয়। যুদ্ধ-বিগ্রহের প্রস্তুতি, অস্ত্রাগার বাড়িয়ে তোলা আর বিধ্বংসী প্রযুক্তির উদ্ভাবনে বিভিন্ন রাষ্ট্রের উৎসাহ চোখে পড়ার মতো। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সমীকরণ ও আঞ্চলিক বিবাদকে কেন্দ্র করে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার কারণে বিভিন্ন দেশই সামরিক খাতে খরচ বিপুল বাড়িয়েছে।

বিগত বহু বছর ধরেই এই খরচের প্রশ্নে অনেক এগিয়ে আমেরিকা। সেই সামরিক ভাণ্ডারে এবার নতুন প্রযুক্তির ড্রোন যোগ করল ডোনাল্ড ট্রাম্পের দেশ। মার্কিন জওয়ানদের জন্য তৈরি নতুন এই ড্রোন কোনও ব্যক্তির পকেটে ফিট হয়ে যাবে। এমনকি হাতের তালুতেও লুকিয়ে রাখা যাবে ড্রোনটি। যুদ্ধক্ষেত্রে কোনও নির্দিষ্ট অবস্থান থেকে প্রায় ১.২ মাইল বা ২ কিলোমিটার (প্রায়) পর্যন্ত নজর রাখতে সক্ষম এই ড্রোন।

ড্রোনের মাধ্যমে যুদ্ধক্ষেত্রে শত্রুর গতিবিধির লাইভ স্টেটাসের পাশাপাশি এইচডি ছবি-ভিডিও দেখা যাবে। অভিনব এই ড্রোনের নাম ‘দ্য ব্ল্যাক হরনেট পার্সোনাল রিকনিসেন্স সিস্টেম (The Black Hornet Personal Reconnaissance System)’।

সম্প্রতি মার্কিন সেনার তরফে এফএলআইআর সিস্টেমস সংস্থাকে এই ড্রোন নির্মাণে ৩৯.৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বরাত দেওয়া হয়। সংস্থার সাম্প্রতিক সাংবাদিক বৈঠকে এই ড্রোন সম্পর্কে তথ্য মিলেছে।

বিশেষ এই ড্রোনগুলি মাত্র ৬.৬ ইঞ্চি লম্বা এবং ওজনে ৩০ গ্রামের কাছাকাছি। এই ‘ন্যানো আনম্যানড এরিয়াল ভিহাইকেল (UAV)’ সিস্টেমের ড্রোনটি বেল্টে বা পকেটে লুকিয়ে রাখতে পারবেন জওয়ান বা ম্যারিনরা।

দিন অথবা রাত, প্রায় ২ কিলোমিটার পর্যন্ত এলাকায় লুকিয়ে নজরদারিতে সক্ষম এই ড্রোন। প্রতি সেকেন্ডে ২০ পা-এর দূরত্ব অতিক্রম করতে পারে সামরিক ড্রোনের এই নতুন ধরন। শত্রু শিবিরে পৌঁছে নীরবেই ভিডিও এবং ছবির মাধ্যমে তথ্য জোগাড় করায় সক্ষম এই ড্রোন।

এফএলআইআর সংস্থার মতে, এই ড্রোন ব্যবহার করে যুদ্ধ-পরিস্থিতিতে শত্রুর থেকে অনেক ধাপ এগিয়ে থাকার পাশাপাশি শত্রুর ফাঁদ থেকে আগাম সতর্ক হওয়া সম্ভব। যার ফলে বহু জওয়ানের জীবন বাঁচানোও সম্ভব হবে। চলতি বছরেই ন্যানো টেকনলজি বিশিষ্ট এই ড্রোন মার্কিন সেনার হাতে পৌঁছে যাবে।

স্বাভাবিক ভাবেই মার্কিন সেনার দেখাদেখি ন্যানো ড্রোনের প্রতি আগ্রহ বাড়বে অন্য দেশগুলির। বিশেষত, রাশিয়া, ব্রিটেন, চীন এবং ভারতের মতো দেশগুলির নজর কাড়বে এই ড্রোন। প্রসঙ্গত, আন্তর্জাতিক সমীক্ষক সংস্থা আইএইচএস জেন’স -এর এক সামরিক সমীক্ষা অনুযায়ী, বাজেটে সামরিক বরাদ্দের নিরিখে বিশ্বের প্রথম পাঁচ দেশ যথাক্রমে- আমেরিকা, চীন, ব্রিটেন, ভারত ও সৌদি আরব। 

মন্তব্য