kalerkantho


গুজব রুখতে চোখ খোলা রাখুন, ভারতের রাস্তায় মাইকে বলছেন এক দৃষ্টিহীন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৭:৫৭



গুজব রুখতে চোখ খোলা রাখুন, ভারতের রাস্তায় মাইকে বলছেন এক দৃষ্টিহীন

চোখে দেখতে পান না তিনি। হাঁটাচলার সম্বল বলতে হাতের লাঠি। সেই লাঠি হাতেই এলাকায় ঘুরছেন ৬০ বছর বাবুল চক্রবর্তী। কাঁধে ঝোলানো মাইক নিয়ে হেঁকে বলছেন, গুজবে কান  দেবেন না।

ভারতের চম্পাহাটি বাজারে এভাবেই সাধারণ মানুষকে সচেতন করছেন তিনি। ওই বাজারেই লটারির টিকিট বিক্রি করে সংসার চলে তার। তবে গুজব কাণ্ডের জেরে সে কাজ শিকেয় তুলে মানুষটা রাস্তায় নেমেছেন মানুষকে সচেতন করতে।

গুজবের জেরে গত কয়েকদিন ধরে উত্তেজনা ছড়িয়েছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার একাধিক জায়গায়। কাউকে শিশুচোর কাউকে কিডনিপাচারকারী বলে দাগিয়ে দিয়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে চলছে নানা অপপ্রচার। 

সেগুলোর সত্যতা যাচাই না করে কিছু লোকের কান ভারি হচ্ছে তাতে। জায়গায় জায়গায় লোককে ধরে স্রেফ সন্দেহের বশে মারধর করছে জনতা। অচেনা মুখ দেখলেই কোথাও কোথাও ঘিরে ধরছে ভিড়। উড়ো প্রশ্নে শাসানির ঢঙ। উত্তর সন্তোষজনক না হলেই পড়ছে চড়-থাপ্পড়।

গত রবিবার মগরাহাট এলাকায় সন্দেহের বশে দু’জনকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে। চোর বা কিডনি পাচারকারী সন্দেহে একের পর এক গণপিটুনি চলছে। জয়নগরের বহড়ু স্টেশন চত্বরে দু’জন অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিকে বেধড়ক মারধর করা হয়। একই ঘটনা ঘটে বেলিয়াচণ্ডী, মোমরেজগড়ে। শুধু গুজব ছড়িয়ে নিরাপরাধ লোকদের মারধরই নয়, হামলা-লুটপাটও হচ্ছে দোকানপাটে।

অপপ্রচারে প্রভাবিত ও আতঙ্কিত না হওয়ার জন্য প্রশাসন থেকে প্রচার শুরু হয়েছে সর্বস্তরে। পঞ্চায়েত, পুলিশের পক্ষ থেকে এলাকায় মাইক নিয়ে প্রচার চলছে। তবে তার মধ্যেও নিজের মতো করে মানুষকে সচেতন করার কাজ করে চলেছেন বাবলু। 

সুভাষগ্রামের কোদালিয়ার বাসিন্দা বাবলু দীর্ঘদিন ধরেই চম্পাহাটি বাজারে লটারির টিকিট বিক্রি করেন। কোনো দোকান নেই। অন্ধ বৃদ্ধ লাঠি এবং মাইক হাতে ঘুরে ঘুরেই বিক্রি করেন লটারির টিকিট। 

তবে মঙ্গলবার সকাল থেকে টিকিট বিক্রি বন্ধ রেখে শুরু করেছেন প্রচার। বৃদ্ধের কথায়, সবাই এ নিয়ে কথা বলছে। এলাকায় নাকি দুষ্কৃতিকারীরা ঢুকে পড়েছে। মানুষ আতঙ্কিত হয়ে পড়ছে। কিন্তু আমার বুদ্ধিতে মনে হচ্ছে, এ সবই গুজব। পুলিশ-প্রশাসন থেকেও শুনলাম তাই বলেছে। তাই টিকিট বিক্রি বন্ধ রেখে এলাকায় ঘুরে সকলকে বোঝানোর চেষ্টা করছি।

চায়ের দোকানগুলোর সামনে লোকজনের জটলা বুঝতে পারলেই তাদের কাছে গিয়ে বাবলু অনুরোধ করছেন, অযথা ভুল খবর না রটাতে। কোথাও কোথাও টিটকিরিও শুনতে হচ্ছে। ভারী গলায় ধমক জুটছে। কিন্তু মাথা ঠান্ডা রেখে নিজের সাধ্য মতো বিবেক-বুদ্ধির কথা বলছেন বাবলু। 

তার কথায়, অনেকেই প্রচারে বাধা দিচ্ছে। বলছে, সত্যিই নাকি এসব ঘটছে। একজন একটা জায়গার কথা বলে বললেন ওখানে এ রকম ঘটেছে। আমি পাল্টা বললাম, আমায় নিয়ে চলো। দেখব কী হয়েছে। তাতে উনি চুপ করে গেলেন।

বাবলুর প্রচার শুনে চায়ের ভাঁড় হাতে থমকে গেলেন এক যুবক। বিড় বিড় করে বলতে শোনা গেল, যে মানুষটার চোখ নেই, তিনিও ধাপ্পাবাজিটা ধরে ফেলেছেন। অথচ, সুস্থ-সবল মানুষগুলো নিজেদের বুদ্ধিসুদ্ধি হারিয়ে কী কাণ্ডটাই না করছে!



মন্তব্য