kalerkantho


১৩ হাজার বছর আগের ম্যামোথের দাঁত পেল কুকুরটি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৪ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১১:৫৭



১৩ হাজার বছর আগের ম্যামোথের দাঁত পেল কুকুরটি

ওয়াশিংটনের ল্যাংলিতে প্রায় ছয় বছর ধরে বসবাস করছেন কার্ক লেইসওয়েল। সঙ্গে পোষা কুকুর, স্কাউট। একদিন বাড়ির পেছনের উঠোনে খোড়াখুড়ি শুরু করল স্কাউট।

কী বের করল সেখান থেকে, পুরনো কোনো পাথরখণ্ড?-না। এটি ছিল একটি রোমশ ম্যামোথের দাঁত।

ফক্স নিউজকে লেসওয়েল বলেন, 'ঘটনাটি কয়েক মাস আগের। একদিন আমি দেখলাম স্কাউট আমার সামনে একটি পাথরখণ্ডের মতো কিছু একটি নিয়ে এলো। আমি ভাবতেই পারিনি এটি অন্য কিছু হতে পারে। পরের দিন বস্তুটি আবার নিয়ে এলো কুকুরটি। সে সেটি মুখে নিয়ে উঠোনের চারদিকে ঘুরছিল।'

প্রাথমিকভাবে, লেইসওয়েল ভেবেছিলেন এটি কেবল একটি শিলাখণ্ড। তবে জিনিসটি ছিল অন্যরকম। তিনি ইউনিভার্সিটি অব ওয়াশিংটনের বিশেষজ্ঞদের দেখালেন। তাঁরাই নিশ্চিত করলেন এটি শিলাখণ্ডের চেয়ে অনেক বড় কিছু।

লেইসওয়েল বলেন, 'আমি ইউনিভার্সিটি অব ওয়াশিংটনে যাদুঘর কর্তৃপক্ষকে আমন্ত্রণ জানাই। সেখানে জীবাশ্মবিদরা ছবি পরীক্ষা করে আমাকে জানান যে বস্তুটি একটি রোমশ ম্যামোথের দাঁত।' 

লেইসওয়েলকে বলা হয় ম্যামোথের দাঁতটি ১৩ হাজার বছরের পুরনো। বার্ক মিউজিয়ামের মতে, এটি  ওয়াশিংটনের পশ্চিমাঞ্চলে পাওয়া কেবল একটি বিরল কিছু তা-ই নয়, এটি তার চেয়ে অনেক বড় কিছু যা খুঁজে পেয়েছে লেইসওয়েলের কুকুর স্কাউট।

প্রায় ১০ হাজার বছর আগে বেশিরভাগ রোমশ ম্যামোথের মৃত্যু হয়েছে। যদিও পূর্ব সাইবেরিয়ার উত্তর উপকূলের দূরবর্তী র‍্যাঙ্গেল আইল্যান্ডে এ প্রাণির কিছু জীবাশ্ম পাওয়া গেছে যা প্রায় ১৭০০ বছর আগের। গত অক্টোবরে, ইংল্যান্ডে সড়ক সম্প্রসারণের কাজে নিয়োজিত শ্রমিকরা রোমশ ম্যামোথের কিছু হাড় খুঁজে পান যা এক লাখ ৩০ হাজার বছরের পুরনো।

যদিও অনেক বিজ্ঞানী বিশ্বাস করেন যে এসব প্রাণি মারা গেছে পরিবর্তিত জলবায়ু এবং মানব শিকারী কাছ দ্বারা। অন্যরা জিন সংশোধন প্রক্রিয়া ব্যবহার করে জ্যামিতিকে ফিরিয়ে আনতে চেষ্টা করছে, যার মধ্যে বিতর্কিত সিআরআরএসপিআর জিন সম্পাদনা সরঞ্জাম রয়েছে। 

সূত্র : ফক্স নিউজ 



মন্তব্য