kalerkantho


একজন পেলেন; দুজন পেলেন না

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৩:৪১



একজন পেলেন; দুজন পেলেন না

মাশরাফি বিন মুর্তজা, ইমরান এইচ সরকার এবং হিরো আলম। ফাইল ছবি

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আলোচিত মনোনয়নপ্রত্যাশীদের মধ্যে শীর্ষে আছেন তিনজন- জাতীয় ওয়ানডে দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা, যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গড়ে ওঠা গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ইমরান এইচ সরকার এবং চলচ্চিত্র জগতের বহুল আলোচিত মুখ হিরো আলম। গত কয়েক সপ্তাহ ধরে এই তিনজনকে নিয়ে কলমের কালি খরচ হয়েছে প্রচুর। কিন্তু তাদের সবার মনের আশা পূরণ হয়নি। মনোনয়ন নিশ্চিত হয়েছে কেবল মাশরাফির।

নিজ জেলা নড়াইল-২ আসন থেকে দেশের জনপ্রিয়তম ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মুর্তজার আওয়ামী লীগের হয়ে নির্বাচন করা নিয়ে পক্ষে বিপক্ষে প্রচুর আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে। কেউ এটাকে ভালোভাবে নিয়েছেন; কেউবা মাশরাফির রাজনীতিতে আসা উচিত হয়নি বলে মনে করেছেন। এর মাঝেই নিজের ফেসবুক পেইজে বিশাল এক পোস্ট দিয়ে রাজনীতিতে আসার কারণ ব্যখ্যা করেছেন মাশরাফি। একইসঙ্গে বঙ্গবন্ধুর হাতে গড়া আওয়ামী লীগের হয়ে কেন নির্বাচন করছেন- তার ব্যখ্যাও দেন তিনি। আজ তার মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছেন জেলা প্রশাসক ও নড়াইল জেলা রিটার্নিং অফিসার আনজুমান আরা।

মাশরাফি সুখবর পেলেও ইমরান এইচ সরকার পেয়েছেন দুঃসংবাদ। মহান মুক্তিযুদ্ধে ভয়াবহ মানবতাবিরোধী অপরাধ করা এদেশীয় রাজাকার-আলবদরের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের দাবিতে গড়ে শাহবাগে ওঠা স্বতঃস্ফুর্ত আন্দোলনের মুখপাত্র ছিলেন ইমরান এইচ সরকার। সেই ২০১৩ সাল থেকেই দেশব্যাপী আলোচিত ব্যক্তিত্ব তিনি। এবার নিজ এলাকা কুড়িগ্রাম-৪ আসন (রাজিবপুর,রৌমারী ও চিলমারী উপজেলা) থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে চেয়েছিলেন ইমরান। কিন্তু তার সমর্থকদের সংখ্যা '১% এর কম' উল্লেখ করে মনোনয়নপত্র আজ বাতিল ঘোষণা করেছেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক মোছা. সুলতানা পারভীন।

একই অবস্থা আশরাফুল আলম ওরফে 'ডিশ আলম' ওরফে 'হিরো আলমে'র। প্রথমে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন মিউজিক ভিডিও বানিয়ে ডিশ চ্যানেলে সম্প্রচার করে তারকা বনে যাওয়া হিরো আলম। তিনি নির্বচনে যোগ্য কিনা- এটা নিয়ে অনেক আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে। সমালোচনার বিনয়ী জবাব দিয়ে আরও আলোচিত হয়েছেন তিনি। কিন্তু শেষ মুহূর্তে দেশ-বিদেশের আলোচিত হিরো আলমকে জাতীয় পার্টি মনোনয়ন দিতে চায়নি। তাই নিজেই স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে নির্বাচনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু আজ তার সমর্থকদের সংখ্যা '১% এর কম' উল্লেখ করে মনোনয়নপত্র আজ বাতিল ঘোষণা করেছেন জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা।

ইমরান এইচ সরকার এবং হিরো আলম দুজনেই নিজ নিজ জেলার রিটার্নিং কর্মকর্তার এমন সিদ্ধান্ত মেনে না নিয়ে আপিলের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আপিল গৃহীত হলে তারা মনোনয়ন পেয়েও যেতে পারেন।



মন্তব্য