kalerkantho


মেয়ের মরদেহ কাঁধে আট কি.মি. হেঁটে হাসপাতালে বাবা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২০ অক্টোবর, ২০১৮ ২৩:৫৬



মেয়ের মরদেহ কাঁধে আট কি.মি. হেঁটে হাসপাতালে বাবা

ভারতে প্রলয়ঙ্কারী ঘূর্ণিঝড় তিতলির আঘাতে অনেকের মধ্যে সাত বছরের শিশু ববিতাও মারা যায়। কিন্তু শিশুটি মারা যাওয়ার পর ময়নাতদন্ত করানোর কথা বলে পুলিশ।

কিন্তু দরিদ্র বাবার গাড়ি ভাড়ার টাকা নেই। সে কারণে মেয়ের মরদেহ কাঁধে করে আট কিলোমিটার পথ হেটে হাসপাতালে যেতে হয় তাকে। জানা গেছে ওই বাবার নাম কুন্দ দোরা। ভারতের ওড়িষ্যার বাসিন্দা তিনি।

জানা গেছে, ওড়িশ্যার গজপতি জেলার আতঙ্কপুর গ্রামে চলতি মাসের ১১ তারিখ নিখোঁজ হয়ে যায় মুকুন্দ দোরার সাত বছরের মেয়ে ববিতা।

ববিতার বাবার ভাষ্যমতে, ঘূর্ণিঝড় তিতলির সময় ঘরচাপা পড়ে ববিতার মৃত্যু হয়। বুধবার মৃতদেহটি পাওয়া যায় একটি নালার মধ্যে। খবর পেয়ে সেখানে উপস্থিত হয় পুলিশ। লাশের ছবি তুলে নিয়ে তা ময়নাতদন্তের জন্য ভবানীপাটনা হাসপাতালে নিয়ে যেতে বলেন তারা।

মুকুন্দ দোরা বলেন, পুলিশ লাশ নিয়ে যাওয়ার কোনো ব্যবস্থা করেনি। তাছাড়া পুলিশ তাকে বলে, মেয়ের লাশ নিয়ে তাকেই হাসপাতালে যেতে হবে। তাই গাড়ি ভাড়া করার সামর্থ্য না থাকায় মেয়ের লাশ বস্তায় ভরে কাঁধে করে হাসপাতালে নিয়ে যান তিনি।



মন্তব্য