kalerkantho


অবিশ্বাস্য, পুরোই কাকতালীয়!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ মার্চ, ২০১৮ ১২:১১



অবিশ্বাস্য, পুরোই কাকতালীয়!

এ ছবিতেই সব পরিষ্কার, ১১ বছর পর তাদের বিয়ে হয়

কাকতালীয় বিষয়গুলোর আসলে ব্যাখ্যা থাকে না। কিন্তু কাকতালীয় ঘটনাও কিন্তু মাত্রা ছাড়া বিস্ময়কর হতে পারে। তেমনটাই দেখালেন চীনের এক ব্যক্তি। তিনি দাবি করেন, সেই ১১ বছর আগে কোনো এক স্থানে বেড়াতে গিয়ে তিনি এবং তার ভবিষ্যত স্ত্রী একই ছবিতে কাকতালীয়ভাবে বন্দি হন। 

চীনে ইন্টারনেটের দুনিয়ায় এ নিয়ে তোলপাড় হয়ে গেছে। ইতিমধ্যে তাদের এই অবিশ্বাস্য গল্প স্থানীয় সংবাদমাধ্যমেও প্রকাশিত হয়েছে। 

চীনের সোশাল মিডিয়া প্লাটফর্ম 'উইবো'তে তাদের সেই ছবিটাও পোস্ট করা হয়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, চীনের সৈকতের পাশের শহর কুইংদাও-তে এক লালর রংয়ের ভাস্কর্যের পাশে ছবি তুলছেন এক নারী। বেশ পিছে অজান্তেই যে পুরুষের ছবিটা উঠেছে, তিনিই ১১ বছর পর বিয়ে করেছেন এই নারীকে। তখন তারা একে অপরকে চিনতেন না। এমনকি সেখানে দেখা বা কথা হয়েছিল তাও নয়। 

পরে প্রমাণ হয় যে জু এবং তার স্বামী ইয়ে ওই ছবিতে বন্দি হয়েছিলেন। ২০০০ সালের জুলাইয়ে দুজনই সেখানে বেড়াতে গিয়েছিলেন। জু এর ছবির পেছনে তিনি কোনভাবে চলে এসেছিলেন এবং তার ছবিটা উঠে যায়। অথচ তখনও তারা দুজন বিষয়টি বুঝতে পারেননি। হঠাৎ করেই বিষয়টি খেয়াল করেছেন। 

স্ত্রীর আগের ছবি দেখতে গিয়ে দুজন বিষয়টি আবিষ্কার করেন। ইয়ে বিস্ময়ঝরা কণ্ঠে বলেন, যখন ছবিটি দেখলাম তখন আমার সারা শরীর যেন শীতল হয়ে আসলো। আমি স্বপ্নেও এমনটা ভাবিনি। 

ঘটনা আরো বিস্ময়কর ছিল। কারণ, ওই সময় ইয়ের সেখানে থাকার কথা ছিল না। তার মায়ের যাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মা অসুস্থ হওয়াতে সে জায়গায় তিনি গিয়েছিলেন। 

পরে ইয়ে সেখানে তোলা তার নিজের ছবিও বের করে পোস্ট দিয়েছেন। 

সত্যিই অবিশ্বাস্য এক ঘটনা। 
সূত্র : এনডিটিভি 


মন্তব্য