kalerkantho


ব্যালকনিতে ঝুলছে বৃদ্ধার মরদেহ!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৩:২২



ব্যালকনিতে ঝুলছে বৃদ্ধার মরদেহ!

ব্যালকনিতে ঝুলছে এক বৃদ্ধার মরদেহ আর গলায় লাগানো ফাঁস। সাত সকালে এই দৃশ্যে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে কলকাতার দমদমে। শনিবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের রাজধানী কলকাতার দমদমের নাগেরবাজারে এ ঘটনা ঘটেছে। একে আত্মহত্যা বলছে বৃদ্ধার পরিবার। কিন্তু স্থানীয়দের দাবী, এটি একটি হত্যাকাণ্ড। 

শনিবার সকালে প্রতিবেশীরা নাগেরবাজারের রফি আহমেদ কিদওয়াই রোডে প্রথমে মরদেহটি দেখতে পান। প্রাথমিকভাবে পুতুল বলে ভুল করলেও অচিরেই ভুল ভাঙে তাদের। ঝুলন্ত দেহটি ওই ফ্ল্যাটেরই বাসিন্দা এক বৃদ্ধার। এরপর তারা পুলিশকে ফোন দিলে লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। ছেলে নীলাঞ্জন ও তার বউকে আটক করা হয়েছে।

ছেলের পরিবারের সঙ্গে নাগেরবাজারের চারতলার ওই ফ্ল্যাটে থাকতেন বৃদ্ধা। নীলাঞ্জন জানান, শুক্রবার রাতে মাংস কিনে আনেন তিনি। মা-কে বলেন রান্না করতে। ভাত খেয়ে রাতে ঘুমিয়ে পড়েন তারা। সকালে কাজের মেয়ে এসে কলিং বেল বাজালে সাধারণত মা-ই দরজা খুলে দেন। কিন্তু এদিন কাজের মেয়েটি বারবার বেল বাজানোয় দরজা খুলে দিয়ে আবার ঘুমিয়ে পড়েন তিনি। কাজের মেয়েটি বেরিয়ে ‌যাওয়ার সময় তাকে জানান, তার মা-কে কোথাও দেখতে পাচ্ছে না সে। 

এরপরই মা-কে খুঁজতে বের হন তারা। ততক্ষণে হট্টগোল শুরু করে দিয়েছেন এলাকাবাসীরা। ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছে বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার করে। 

স্থানীয়দের দাবি, দেহটি ‌যেভাবে ঝুলছিল তাতে আত্মহত্যার তত্ত্ব খাটে না। চার তলার ব্যালনি থেকে তিন তলার ব্যালনির ছাউনিতে পা ঠেকে ছিল বৃদ্ধার। কীভাবে এই অবস্থায় কেউ আত্মঘাতী হতে পারেন প্রশ্ন তুলছেন তারা। এ ছাড়া ঘরের ভিতরেও আত্মঘাতী হতে পারতেন তিনি। চার তলার ব্যালকনি গ্রিল দিয়ে ঘেরা ছিল না। সেক্ষেত্রে ঝাঁপ দিয়ে আত্মঘাতী হওয়ার বিকল্পও খোলা ছিল। 

এদিকে, ছেলে ও বউকে আটক করে থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ। ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। 

তথ্যসূত্র: জি-নিউজ 

 

 



মন্তব্য