kalerkantho


মাঝ আকাশে ইঞ্জিনে বিস্ফোরণ, তারপরও শান্ত ছিলেন বিমানযাত্রীরা!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৮:১৩



মাঝ আকাশে ইঞ্জিনে বিস্ফোরণ, তারপরও শান্ত ছিলেন বিমানযাত্রীরা!

সামনে কালো ঘন মেঘ, নীচে প্রশান্ত মহাসাগর। মাঝআকাশে বিমানের ইঞ্জিন খারাপ হওয়ার পর থেকেই পাখির পালকের মতো মাটির দিকে নামতে শুরু করেছে ইউনাইটেড এয়ারলাইন্সের বিামান। এই অবস্থায় বিমানযাত্রীরা কী করলেন, তা দেখলে আপনি অবাক হয়ে যাবেন। হতেও পারে এ বছরের সবচেয়ে মারাত্মক একটি ঘটনা!

যু্ক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকো থেকে হনুলুলু যাচ্ছিল বোয়িং ৭৭৭ বিমান। মাঝআকাশে উঠেই পাইলট জানান, ‘প্লেনের দ্বিতীয় ইঞ্জিন কাজ করছে না। বিপদকালীন ল্যান্ড করতে হবে। আপনারা শান্তভাবে থাকার চেষ্টা করুন।’

বিমানের ভিতর সেই সময় হাজার খানেক যাত্রী। বিমানের জানালা থেকে দেখা যাচ্ছে, ইঞ্জিনের ওপর থাকা ধাতব আস্তরণ বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়ে, মহাসাগরের দিকে উড়ে গেল। সঙ্গে ধোঁয়াও বের হতে শুরু করেছে। এই অবস্থায় স্বাভাবিকভাবেই আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়াটাই বাঞ্ছনীয়।

আপনি জানেন, বিমান সঠিকভাবে ল্যান্ড না হলে আপনার মৃত্যু অনিবার্য। শুধু ল্যান্ড হওয়াটাই নয়, মাঝাকাশে বিমান দুর্ঘটনা ঘটলে অশান্ত মহাসাগরে কোথায় তলিয়ে যাবেন, তার ঠিকানা দেওয়ার লোকও আদৌ পাওয়া যাবে কি না সন্দেহ। চোখের সামনে আপনার মৃত্যু যখন আসন্ন, তখন কীভাবে শান্ত থাকা সম্ভব! কিন্তু এই বোয়িং ৭৭৭-র হাজার যাত্রীর বুকে ভয় থাকলেও যেভাবে শান্ত হয়ে বসেছিলেন, তা সকলকে অবাক করে দিয়েছে।

আরও পড়ুন: প্রিন্ট মিডিয়ার আয়ু আর মাত্র ১০ বছর!

যাত্রীদের মধ্যে একজন টেকনিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার ছিলেন, নাম জেফ কার্টার। তিনি তাঁর ফোনে সেই ভিডিও তুলে ইন্সটাগ্রামে পোস্ট করেছেন। তাঁর কথায়, ওই অবস্থায় সকলের মুখেই আতঙ্কের ছাপ স্পষ্ট ছিল। সকলেই মৃত্যুঘন্টা শুনতে পাচ্ছিলেন। তাও সকলে চুপ করে শান্ত হয়েছিলেন। প্লেন তখন দ্রুত মাঝআকাশ থেকে হুড়মুড়িয়ে সাগরের দিকে নামতে শুরু করেছে।

এমতাবস্থায় তাঁর পেছনের সিটে বসে থাকা বেশ কয়েকজন যাত্রীদের ভিডিও করেন। সকলেই শান্তভাবে, কোমরে সিটবেল্ট দিয়ে বসে রয়েছেন। কেউ কোনো টু শব্দটিও করেননি। মৃত্যুকে সামনে থেকে দেখার সুযোগ আর কজনেরই বা হয়, কিন্তু মৃত্যুকে এভাবে স্বাগত জানানো!

আরও পড়ুন: সিগারেট তৈরির একটি মূল উপাদান ইঁদুরের বিষ্ঠা!

শেষ পর্যন্ত, পাইলটের দক্ষতায় হনুলুলু বিমানবন্দরে সঠিকভাবে বিমান ল্যান্ড করে। পরে অবশ্য সকল যাত্রীকে সহযোগিতা করার জন্য ধন্যবাদও জানান পাইলট থেকে বিমানের ক্রু-রা। হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জের রানওয়েতে বেলা ১টা নাগাদ বিমান ল্যান্ড করে। উড়ানের সকল যাত্রী হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন। তবে নামার আগে পরস্পরকে হ্যান্ডসেক করে ও হাততালি দিয়ে নিজেদের বিরাট জয়কে সেলিব্রেট করেন।

দেখুন ভিডিও...



মন্তব্য