kalerkantho


বই ধ্বংস করে শিল্পকর্ম!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৪ জানুয়ারি, ২০১৮ ২২:০৭



বই ধ্বংস করে শিল্পকর্ম!

বই কি শুধু পড়ার জন্য? এক স্কটিশ শিল্পী বইকে কার্যত ধ্বংস করে সেই ধ্বংসাবশেষ নিয়ে সৃষ্টিকর্ম মেতে উঠছেন। বইয়ের নামের বিমূর্ত রূপ তুলে ধরে তিনি মানুষকে আরও সংবেদনশীল করে তুলতে চাইছেন।

টুকিটাকি কাগজের ছেঁড়া টুকরো, ধ্বংসের চিহ্ন। ভাল করে দেখলে সাহিত্যমোদীরা শিউরে উঠতে পারেন। বই ছিঁড়ে টুকরো টুকরো করে ভাস্কর্য, রহস্যময় সত্বা, অতীতের সংস্কৃতি ও বিভিন্ন চরিত্রের আবক্ষ মূর্তিতে রূপান্তরিত করা হয়। শিল্পী জর্জিয়া রাসেল বলেন, ‘‘আমি এই টুকরোগুলিকে নিখুঁত ও সমানুপাতিক করে তুলতে চাই না। স্টুডিওতে কিছু সময় রেখে সেগুলিকে এদিক-ওদিক নিয়ে যেতে চাই, যাতে নির্দিষ্ট স্থানে রাখার আগে তাদের একটা জীবন থাকে। কারণ এভাবে তাদের নিজস্ব এক ব্যক্তিত্ব সৃষ্টি হয়।''

জর্জিয়া রাসেলের হাতিয়ার স্ক্যালপেল বা খোদাই করার ছোট ছুরি। সেটি দিয়ে তিনি বইপত্র, ছবি, স্ক্রিন ছিন্নভিন্ন করতে পারেন। নিজেকে ‘ওয়ার্কিং মম' বা কর্মরতা মা বলেন তিনি। আপাতত তিনি পর পর ঝোলানো রং করা পর্দা নিয়ে কাজ করছেন।

জর্জিয়া বলেন, ‘‘মাঝেমাঝে দুশ্চিন্তা হয়, কারণ ধরুন আমি অনেক দিন ধরে একটা পেন্টিং নিয়ে কাজ করেছি। সেটি দেখতে ভালই লাগছে। কিন্তু আমি জানি, ছুরি চালিয়ে সেটি সম্পূর্ণ বদলে দেব। তাই কিছু পেতে গেলে কিছু হারাতে হয় – সবসময়ে সেটা মেনে নিতে হবে।''

প্রদর্শনীর নাম ‘দ্য ওপেন উইন্ডো'। তাঁর সৃষ্টিকর্মের উপর দর্শকের দৃষ্টি স্থির থাকে না। জর্জিয়া রাসেল প্রকৃতি খুব ভালবাসেন। সেইসঙ্গে বইও পছন্দ করেন। তিনি বলেন, ‘‘প্রথম থেকেই বইয়ের নাম আমাকে ভাবিয়েছে। সেই নাম থেকে প্রেরণা নিয়ে আমি সৃষ্টির কাজ করি। আরও অগ্রসর হলে আমার মনে হয়, অ্যাবস্ট্রাক্ট বা বিমূর্ত রূপ আরও যথাযথ হবে।''

বিস্ফোরণ ঘটিয়ে বই ধ্বংস করা হয়। জর্জিয়া রাসেল বুঝিয়ে বলেন, যে ধ্বংসলীলা সত্ত্বেও তিনি বইয়ের মধ্যে রাখা জ্ঞান সংরক্ষণ করতে চান। বিষয়টা বেশ অদ্ভুত মনে হলেও তিনি এভাবে মানুষকে আরও সংবেদনশীল করে তুলতে চান।

-ডিডাব্লিউ



মন্তব্য