kalerkantho


৫০ বছরে এই প্রথম চুরি!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৮:৫০



৫০ বছরে এই প্রথম চুরি!

অকৃপণ প্রাকৃতিক শোভায় সাজানো জায়গাটা পিকচার পোস্টকার্ডকেও হার মানায়। সেইসঙ্গে হার মানাবে রূপকথাকেও। এ যেন আজব দেশের গজব কথা। শুনতে হলে যেতে হবে স্কটল্যান্ডের পশ্চিমে। যেখানে নিসর্গের কোলে ছড়িয়ে আছে বিখ্যাত হেব্রিডিয়ান দ্বীপপুঞ্জের একটি‚ কানা (Canna Island)। দ্বীপের মোট জনসংখ্যা মাত্র ২৬। বছর আড়াই আগে সেখানে এমন এক ঘটনা ঘটে‚ যা বিগত কয়েক দশকে শোনা যায়নি এই দ্বীপে। সেটা হল‚ পঞ্চাশ বছরেরও বেশি সময়কাল পরে এই দ্বীপে ছিঁচকে চুরি হয়! 

এই দ্বীপে শেষ চুরি হয়েছিল ছয়ের দশকে। গির্জা থেকে খোয়া গিয়েছিল কাঠের প্লেট। তারপর চুরি কাকে বলে‚ ভুলতে বসেছিল স্থানীয় মানুষ। অপরাধের বিরলতায় এখানে কোনও থানাও নেই। দ্বীপের কমিউনিটি দোকানটি খোলা থাকে ২৪x৭। যাতে মৎস্যজীবীরা রাতবিরেতে এসে পেতে পারেন দরকারি জিনিস। হঠাৎ চাইলে পাওয়া যেতে পারে ওয়াই-ফাই কানেকশন।

দোকানে থাকত না কোনও কর্মীও। সব হাট করে খোলা। রাখা আছে সামগ্রী। যার যেমন দরকার তুলে নিয়ে‚ লিখে রাখত নির্দিষ্ট খাতায়। তারপর পয়সার বাক্সে দাম ফেলে দিয়ে‚ হাঁটা দিত। কানা দ্বীপের সবেধন নীলমণি এহেন দোকান থেকে চুরি যায় উলের ছটি টুপি‚ ক্যান্ডি‚ কুকি‚ ব্যাটারি এবং প্রসাধনী। ঘটনায় বেবাক তাজ্জব দ্বীপবাসীরা !

তাঁরা নিশ্চিত‚ এই কাজ পর্যটকদের। কারণ‚ কানার বাসিন্দারা ভুলেই গেছেন‚ না বলে পরের জিনিস কীভাবে নিতে হয়। এই ছিঁচকে চুরির তদন্ত করেছিল স্কটল্যান্ডের বিখ্যাত পুলিশ বাহিনী। আধিকারিকদের বক্তব্য‚ চোর শুধু জিনিস নয়। নিয়ে গিয়েছিল কানাবাসীর বিশ্বাস এবং আস্থাও। 


মন্তব্য