kalerkantho


মিথ্যে কথা বলা কিন্তু জরুরি নয়!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৮:৪৮



মিথ্যে কথা বলা কিন্তু জরুরি নয়!

আচ্ছা, মানুষ কেন মিথ্যে কথা বলে? মানুষ যা ভাবে সেটা প্রকাশ করলে কি কোনো অসুবিধা হয়? না, হয় না। বরং সত্য বললে মানসিক গ্লানি কমে, মনটাও থাকে ভালো। এমনটাই বলছেন একজন মনোবিজ্ঞানী। বিস্তারিত থাকছে প্রতিবেদনে।

মিথ্যা বলার কারণ খুঁজুন
মিথ্যা কথা বলার ঘটনাগুলো নিয়ে যদি একটি ঠান্ডা মাথায় চিন্তা করে দেখেন, তাহলেই হয়ত মিথ্যা বলার মূল কারণ খুঁজে পাবেন। নিজেই একটু বিষয়টা নিয়ে ভাবলে দেখবেন মিথ্যা না বলেও মনের অনুভূতিটা সহজেই প্রকাশ করতে পারছেন। এ কথা জানান মার্কিন মনোবিজ্ঞানী ডা. ব্র্যাড ব্ল্যান্টন।

মিথ্যা কথার নানারূপ
‘সৎ’ থাকা শুনতে বেশ ভালো লাগলেও বাস্তবে অতটা সহজ নয়। মানুষ নাকি দিনে ১৫০ থেকে ২০০ বার মিথ্যে বলে। এ ধরনের মিথ্যের মধ্যে পড়ে নীরব থাকা, বিদ্রুপ করা, কপ্লিমেন্ট করা ,জুয়াচুরি, নিজেই সত্যকে অস্বীকার করা অর্থাৎ মিথ্যে ভাবা এবং নম্রতা বা ভদ্রতার কারণে সত্য কথাটি ‘না’ বলা ইত্যাদি। এছাড়াও অনেকে মিথ্যে বলেন অভ্যাসের বসে বা ভয়ে।

যাঁদের কথা সকলেই জানে
যাঁরা রাজনীতিক, যারা সমাজে নানা ধরনের অপরাধমূলক কাজে জড়িত কিংবা যারা মিথ্যে সার্টিকেট দেখিয়ে নানা সুযোগ-সুবিধা নিয়ে থাকেন, তাদেরই সাধারণত ‘মিথ্যাবাদী’ বলা হয়। এগুলো আসলে অনেক বড় মিথ্যে কথা।

নিজের কাছে ‘সৎ’ থাকাই বড় কথা
ভদ্রভাবে ন্যায্য কথা বলা ও প্রয়োজনে রাগ প্রকাশ করার জন্য মানসিক প্রস্তুতি থাকলেই কিন্তু যে কেউ সত্য কথা বলতে পারে। জানান মার্কিন মনোবিজ্ঞানী ডা. ব্র্যাড ব্ল্যান্টন।

যে কারণে জার্মানরা মিথ্যে বলেন
কাউকে খুশি করতে কিংবা কোনো কারণে কাছের মানুষের মন ভালো করতে মিথ্যে কথা বলে থাকেন জার্মানরা। আর এ সব কারণেই শতকরা ৪৯ জন জার্মান মিথ্যে কথা বলেন। ১০২৪ জনকে নিয়ে করা এক সমীক্ষা থেকে এই তথ্য পাওয়া গেছে। মিথ্যা কথা বলার কারণ নিয়ে এই গবেষণাটি করেছে ‘স্প্লেনডিড রিসার্চ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান।

যে কারণে পাঠকদের অনেকে মিথ্যা বলেন
‘‘নিজের সন্মানের খাতিরে সপ্তাহে দুই-একটা কথা স্ত্রীর কাছে অনেকেরই লুকাতে হয়। আসলে কিছু কিছু বিষয় থাকে, যা নিজের ওয়াইফের কাছেও বলা যায় না।’’ ডিডাব্লিউ'র ফেসবুক পাতায় এ কথা লিখেছেন পাঠক এমএ বারিক। আর মো. রায়হান লিখেছেন, ‘‘আমি মিথ্যা বলি সাধারণত এমন পরিবেশে যখন মনে হয় সত্য কথা বললে আমার সঙ্গে আর তাঁরা ভালো ব্যবহার করবেন না, তখন।’’

সত্যকে লুকিয়ে মিথ্যা বলেন যাঁরা
‘‘কোনো কথা দেয়ার সময় আমি যদি জানি যে কথাটা আমি রাখবো না বা আমার পক্ষে রাখা সম্ভব না, আমার কাছে কথা দেয়াটাই তখন মিথ্যা।’’ এ মন্তব্য তানজিনা ফেরদৌসের। পাঠক রাতুল বসুর কাছে বাস্তবকে অস্বীকার করার আরেক নাম মিথ্যা। আবার প্রদীপ কুন্ডুর কথায়, ‘‘যুক্তিসঙ্গত কারণে মিথ্যা বললে ততটা কষ্ট পাই না, অন্যথায় অপরাধবোধ ভীষণ কষ্ট দেয়।’’

-ডিডাব্লিউ


মন্তব্য