kalerkantho


প্রাগৈতিহাসিক নারীরা আজকের ক্রীড়াবিদদের চেয়েও সুঠাম ছিলেন!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ ২১:১৮



প্রাগৈতিহাসিক নারীরা আজকের ক্রীড়াবিদদের চেয়েও সুঠাম ছিলেন!

মানুষেরা যখন শিকার ও খাদ্য সংগ্রহের জীবন ছেড়ে স্থায়ী গ্রাম গড়ে বসবাস এবং কৃষিকাজ শুরু করেছিল তখন তারা শুধু কোনো আরাম-আয়েশের জীবন যাপনের প্রতিজ্ঞা করে নতুন সভ্যতা শুরু করেননি। মধ্য ইউরোপের যে নারীরা কৃষি সভ্যতার সেই সুচনা লগ্নে ছিলেন তারাও ভারি শারীরিক পরিশ্রম করতেন। সম্প্রতি সেই সময়কার নারীদের কঙ্কাল নতুন করে বিশ্লেষণ করে এমনটাই জানা গেছে। যুক্তরাজ্যের ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে নতুন এই গবেষণা চালানো হয়।

নারীরাও জমি চাষ, চারা বোনা, ফসল কাটা এবং ফসল মাড়াই ও পেষার কাজ করত। ফলে তাদের হাতের ওপরের অংশও বেশ পেশিবহুল ছিল। এমনকি আজকের অভিজাত নৌকাবাইচের নারী ক্রীড়াবিদদের চেয়েও তারা বেশি শক্তিশালী ছিলেন।

এর আগে কৃষি বিপ্লবের ফলে মানুষের যে শারীরিক পরিবর্তন হয়েছিল সে ব্যাপারে গবেষণার কাজটি শুধু পুরুষদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল।  

ইংল্যান্ডের ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃবিজ্ঞানী অ্যালিসন ম্যাটিনটোশ বলেন, পুরুষদের কঙ্কালগুলোর প্রধান প্রবণতাগুলো সহজেই ব্যাখ্যা করা যায়। তিনি এর আগে প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনের সঙ্গে সঙ্গে কৃষিকাজ সহজ হয়ে আসায় এবং আরো আরাম-আয়েশের জীবন যাপন সম্ভব হওয়ায় কীভাবে পুরুষদের পায়ের হাড় দূর্বল হয়ে পড়েছে সে সম্পর্কিত গবেষণায়ও যুক্ত ছিলেন। ওই গবেষণায় পুরুষদের কঙ্কালগুলো সহজেই ব্যাখ্যা করা যাচ্ছিল বলে জানান ম্যাকিনটোশ।

কিন্তু নারীদের কঙ্কালগুলোর লক্ষণগুলো একটু কম স্পষ্ট এবং ব্যখ্যা-বিশ্লেষণ করাও কঠিন। ৫৩০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে ৮৫০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত নানা সময়কালের নারীদের কঙ্কাল নিয়ে গবেষণা চালানো হয় এই গবেষণায়।

সেসময়কার নারীদের সঙ্গে বর্তমান কালের অভিজাত দৌড়বিদ, নৌকাবাইচের দাঁড়টানিয়ে, সকার খেলোয়াড় এবং নিষ্ক্রিয় জীবন যাপন করেন এমন ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় নারী শিক্ষার্থীদের তুলনার করা হয়।

গবেষণায় দেখা গেছে, বর্তমানের একজন সাধারণ নারীর তুলনায় নব্যপ্রস্তর যুগের নারীদের বাহুর হাড় ৩০% বেশি শক্তিশালী ছিল। আর প্রতিদিন দুবার প্র্যাকটিস করা বর্তমানের নারী ক্রীড়াবিদদের চেয়ে তাদের বাহু ১৬% বেশি শক্তিশালী ছিল।

ব্রোঞ্জ যুগের, ৪৩০০ থেকে ৩৫০০ বছর আগেকার নারীরা বর্তমানের নৌকাবাইচের দাঁড়টানা নারীদের চেয়ে ১৩% বেশি শক্তিশালী বাহুর অধিকারী ছিলেন। তবে তাদের পা এখনকার ক্রীড়াবিদ নারীদের চেয়ে ১২% কম শক্তিশালী ছিল। তার মানে সেসময় নারীরা অনেক কম চলাফেরা করতেন।

গত ২৯ নভেম্বর জার্নাল সায়েন্স অ্যাডভান্সেস-এ ওই গবেষণাটি প্রকাশিত হয়।

 


মন্তব্য