kalerkantho


মূত্রই হবে মার্কিন যুদ্ধযানের ভবিষ্যত জ্বালানী!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ অক্টোবর, ২০১৭ ১৭:৪৪



মূত্রই হবে মার্কিন যুদ্ধযানের ভবিষ্যত জ্বালানী!

এটা বিশেষ অ্যালুমিনিয়ামের ন্যানো পাউডার

মার্কিন সেনাবাহিনীর একদল বিশেষজ্ঞ তাদের যুদ্ধযানের জ্বালানীর খরচ ব্যাপক হারে কমানোর চেষ্টা করছেন। এখনও গবেষণা সফল হয়নি।

কিন্তু এই সব যানের জন্যে মূত্রকে জ্বালানী হিসাবে ব্যবহারের চিন্তা করছেন তারা। যুদ্ধক্ষেত্রে সেনাদের মূত্র থেকেই যুদ্ধযানগুলো বাড়তি জ্বালানী পাবে। খরচ তো কমবেই। ঘাটতি পড়লেও কাজ চালিয়ে নেওয়া যাবে।  

ম্যারিল্যানডের আবেরডিন প্রোভির গ্রাউন্ডের ইউএস আর্মি রিসার্চ ল্যাবরোটরি (এআরএল) এর একটি দল বিশ্বাস করেন, মানুষের মূত্রের মাধ্যমে শক্তি উৎপাদন সম্ভব।  

সাধরণত সেনারা ৭২ ঘণ্টার একটা মিশনে ৮০ পাউন্ডের মতো ওজন বহন করেন। বিভিন্ন যন্ত্রে শক্তি সরবরাহের জন্যে ব্যাটারির ওজনই থাকে ১৫ পাউন্ডের মতো। শক্তি সরবরাহের এই বাড়তি ওজন হ্রাস করতে পারে মূত্র। এতে বহনে বাড়তি ওজন কমবে ২০ শতাংশ।

 

হয়তো ভবিষ্যত যুদ্ধক্ষেত্রে সেনারা নিজেদের মূত্র ব্যবহার করেই যন্ত্রপানি চালনা বা যান চালনার বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারবেন। ড্রোন, নাইট ভিশন যন্ত্র থেকে শুরু করে ল্যাপটপও চালানো যাবে এর মাধ্যমে।  

যখন মূত্র শক্তি উৎপাদনসহ সেনাদের কাঁধ থেকে ওজন কমাবে, ঠিক সেই সময় আশার আলো দেখাতে পারে ফুয়েল সেল। এগুলোও একই কাজ করতে পারে।  

আসলে মূত্রে আছে হাইড্রোজেন। আর ওখানেই বিশেষজ্ঞদের যত আগ্রহ। বিশেষ এক অ্যালুমিনিয়ামের ন্যানো পাউডার মূত্রে ব্যবহারের মাধ্যমে এক চেইন বিক্রিয়ার মাধ্যমে হাইড্রোজেন উৎপাদন করতে পেরেছেন তারা। তিন মিনিটের মধ্যে এক কেজি ন্যানো পাউডার মূত্র থেকে ২২০ কিলোওয়াট শক্তি উৎপন্ন করতে পারে। জ্বালানীর কোষগুলোতে শক্তি জোগাতে হাইড্রোজেন খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটাকে যখন মূত্র থেকে জ্বালানী হিসেবে ব্যবহার করা যাবে তখন বিদ্যুতের সঙ্গে পানি বা তাপ উভয়ই উৎপাদন সম্ভব।  

ফুয়েল সেলগুলো আসলে ব্যাটারির মতো কাজ করে। এগুলোতে থাকে রাসায়নিক পদার্থ। এই রাসায়নিক পদার্থগুলো ইলেকট্রিসিটিতে রূপান্তরিত হয়। এক অর্থে ব্যাটারি থেকে ভিন্ন এই ফুয়েলে সেলগুলো। এদের রিচার্জ করতে হয় না। আবার এগুলো ব্যাটারির মতো ডাউন হয়েও পড়ে না।  

তাই এ গবেষণা সফল হলে মার্কিন সেনাবাহিনীর জ্বালানীর পেছনের ব্যয়ের বিশাল একটি অংশ বেঁচে যাবে। সূত্র : ফক্স নিউজ 


মন্তব্য