kalerkantho


৪০০ বছর পর্যন্ত বাঁচতে পারে মানুষ, ব্যাখ্যা রামদেবের

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৬:২৭



৪০০ বছর পর্যন্ত বাঁচতে পারে মানুষ, ব্যাখ্যা রামদেবের

আয়ুর লেখা কেউ পড়তে পারে না। তবু লেখা থাকে।

আর জীবন ক্যালেন্ডারের পাতা ওলটাতে ওলটাতে একদিন সময় ফুরিয়ে যায়। কিন্তু সে সময় কতটুকু! মেরেকেটে একশো বা তার থেকে কিঞ্চিত বেশি। কিন্তু যোগগুরু বাবা রামদেব বলছেন, মানুষের শরীর যেভাবে তৈরি তাতে অন্তত ৪০০ বছর বেঁচে থাকা যায়। কিন্তু মানুষ শরীরের উপর অত্যাচার করে বলেই মৃত্যু ঘনিয়ে আসে।

যোগগুরু হিসেবে বাবা রামদেব প্রখ্যাত। তাই তাঁর পরামর্শ মোটেও ফেলনা নয়। বাবার সাফ কথা, মানুষের শরীরের গঠন যেরকম, তাতে চারশো বছর মানুষ বাঁচতেই পারে। কিন্তু অসংযমী জীবনযাপনের কারণেই শরীরের উপর ক্রমাগত অত্যাচার করে চলে মানুষ। তার জন্যই কমে আয়ুরেখা।

অথচ একটু মনযোগী হলেই অসুখ আর ওষুধের বিড়ম্বনা থেকে নিজেকে বাঁচানো যায়। রামদেব জানান, তিনিও স্বাধীনতার কথা বলছেন। তবে তা এই দৈহিক আধিব্যধির থেকে স্বাধীনতা। বর্তমান যুগ গতিপ্রবণ। সকলকে দৌড়তে হচ্ছে। জীবনযাপনের প্রাত্যহিক নিয়মেও নানা ব্যতিক্রম দেখা দিচ্ছে। আর এই সময় সুস্থ থাকতে হলে যোগের উপর ভরসা রাখতেই হবে।

খাদ্যাভাস নিয়ন্ত্রণের উপরও জোর দেন তিনি। উদাহরণস্বরূপ তিনি টেনে আনেন বিজেপি-র সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহর প্রসঙ্গ। রামদেবের দাবি, অমিতজি ইতিমধ্যে প্রায় ৩৮ কিলো ওজন ঝরিয়েছেন। আর তা সম্ভব হয়েছে লাঞ্চ ও ডিনার নিয়ন্ত্রণ করেই। ডিনারে সবজি ও সুপ খেতেন তিনি। লাঞ্চও করতেন পরিমিত মাত্রায়। সে কারণেই ওজন কমাতে পেরেছেন।

রামদেবের দাবি, এইরকম নিয়ন্ত্রণ থাকলে অনেকেই রোগকে দূরে রাখতে পারেন। প্রতিরোধ ক্ষমতা কম থাকার কারণেই মানুষ অসুখের কবলে পড়ে। রামদেবের মতে নিয়মিত প্রাণায়াম করতে পারলে তা থেকে অনেকটাই মুক্তি মিলতে পারে। মানুষের শরীর যেভাবে তৈরি তাতে দীর্ঘ চারশো পর্যন্ত তা ঠিকে থাকতে পারে বলেই মত তাঁর।

 


মন্তব্য