kalerkantho


নরবলি দেওয়া হত এই রাজপরিবারের পূজায়

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ২১:৩৮



নরবলি দেওয়া হত এই রাজপরিবারের পূজায়

ছবি : ইন্টারনেট থেকে

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়ার রাইপুরের রাজা দুর্জন সিংহ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির বিরুদ্ধে বিদ্রোহের অন্যতম এক নায়ক৷ যে অস্ত্র দিয়ে তিনি একদিন ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছিলেন সেই সেই অস্ত্র দিয়েই এখন রাজপরিবারের কুলদেবতা দেবী মহামায়ার পূজায় বলিদান হয়। কথিত আছে, বহু প্রাচীণ এই মহামায়া মন্দিরে একসময় নরবলি হত।

সেই নরবলির রক্ত নালার মধ্য দিয়ে গিয়ে পাশের কংসাবতীর পানিতে মিশে যেতো।

১৭৬৯ সাল থেকে ১৭৯৯ সাল পর্যন্ত এই বিদ্রোহ চলেছিল৷ যার অন্যতম নেত্রী ছিলেন ভারতের মেদিনীপুরের কর্ণগড়ের রানি শিরোমনি৷ সেই চোয়াড় বিদ্রোহের নায়ক রাজা দুর্জন সিংহ৷

রাইপুর রাজপরিবার সূত্রে খবর, সারা বছর বর্তমান রাজবাড়িতে ওই অস্ত্র সযত্নে রাখা থাকে৷ তবে দুর্গা পূজার ষষ্ঠীর দিন বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা সহকারে সেই অস্ত্র আনা হয় মহামায়া মন্দিরে। মহাষ্টমীর ছাগ বলিতে ব্যবহৃত হয় রাজা দুর্জন সিংহের অস্ত্র। দশমী পূজা শেষে একইভাবে শোভাযাত্রা সহকারে নিয়ে যাওয়া হয় রাজবাড়িতে। পূজার ক’টা দিন সাধারণ মানুষের কাছে অন্যতম দ্রষ্টব্য হয়ে ওঠে রাজা দুর্জন সিংহের ওই অস্ত্র।

একটা সময় বাঁকুড়ার রাইপুর এলাকা ছিল জঙ্গলে পরিপূর্ণ। বিষ্ণুপুর রাজপরিবারের একটি অংশ এখানে এসে রাইপুর পরগনায় জমিদারি প্রতিষ্ঠা করেন। এই রাজপরিবারেরই একসময়ের রাজা দুর্জন সিংহ। এখনও দুর্জন সিংহকে এলাকার মানুষ বিপ্লবী রাজা হিসেবেই জানেন।

জানা যায়, দেবী মহামায়ার পূজায় রাজা দুর্জন সিংহ হাত কামান ব্যবহার করতেন। এই কামান তোপধ্বনির শব্দ শুনে আগে এলাকার অন্যান্য পুজাগুলিতে সন্ধি পূজা শুরু হত।


মন্তব্য