kalerkantho


৩৩০০ বছরের পুরনো নারীদেহের মমির বিশেষ জায়গায় এটা কী!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ মার্চ, ২০১৭ ২১:০৬



৩৩০০ বছরের পুরনো নারীদেহের মমির বিশেষ জায়গায় এটা কী!

প্রাচীন মিশরীয় সভ্যতার অধিবাসীরাও ভুগত হার্ট আর কোলেস্টেরলের সমস্যায়। তাদেরও দাঁতে যন্ত্রণা হত। সেই সমাজের নানা স্তরের মানুষের ৮ টি মমির CAT Scan হয়েছে লন্ডনের হাসপাতালে। সেখান থেকেই জানা গিয়েছে এই তথ্যগুলো।

শুধু শারীরিক সমস্যাই নয়। মিলেছে প্রসাধন সংক্রান্ত তথ্যও। অত্যাধুনিক পরীক্ষায় একটি মামির থাই-তে দেখা গিয়েছে ট্যাটু-র চিহ্ন। বলা হচ্ছে, এটাই মানব সভ্যতার প্রথম ট্যাটুর নিদর্শন। মিশরীয় সভ্যতার বেশ কিছু মমিকে পরীক্ষা করা হয়। সেগুলোর সময়কাল খ্রিস্টপূর্ব ৫৫০০ বছর থেকে ১০০০ খ্রিস্টপূর্ব। মৃত্যুকালে তাদের বয়স হয়েছিল ২ থেকে ৫০ বছর অবধি।

১৩০০ খ্রিস্টপূর্ব অব্দের একটি মমি উদ্ধার করা হয়েছে। গবেষকরা জানিয়েছেন সেটি কোনও মহিলার দেহ ছিল। ৩৩০০ বছরের প্রাচীন এই মমির থাইতে দেখা গেছে ট্যাটু।

মিশরীয়দের ডায়েট ছিল প্রোটিনে সমৃদ্ধ। প্রচুর মাছ, অল্প বিস্তর মাংস, বিয়ার, পাউরুটি আর ফল। বিশেষত মরুদ্যানের সুমিষ্ট খেজুর।

বিশেষজ্ঞদের মত, এই রকম খাদ্যাভ্যাস অথবা বংশগত কারণেই স্বাস্থ্যহানি হয়েছিল মিশরীয়দের। পরীক্ষানিরীক্ষার পরে খুব তাড়াতাড়ি মমিগুলোকে রাখা হয় ব্রিটিশ মিউজিয়ামে।

- ইন্টারনেট


মন্তব্য