kalerkantho


জেনে নিন মশার কয়েলের ভয়াবহতা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ মার্চ, ২০১৭ ০৩:৩৮



জেনে নিন মশার কয়েলের ভয়াবহতা

ফাল্গুন মানেই দিনের বেলা প্রখর রোদ, আর রাতে মৃদু দক্ষিণা বাতাস। এই সময়টাই হলো অবাঞ্ছিত অতিথিদের আগমনের একেবারে মোক্ষম সময়।

শুধু সন্ধ্যে নামলেই হল, দরজা জানালা খোলা থাকলেই সৈনিকের মতো ঘরে ঢুকে তারা। তারপর সুযোগ বুঝে হুল ফোটানো। এর মধ্য দিয়েই তারা নিপুণ কায়দায় শরীরে ঢুকিয়ে দিচ্ছে ডেঙ্গু, ম্যালেরিয়া প্রভৃতি মারাত্মক সব রোগ। শেষমেষ মশার হাত থেকে রেহাই পেতে কয়েল জ্বালাচ্ছেন। তাতেও শেষ রক্ষা হয়না। বারোটা বাজছে ফুসফুস ও হার্টের। ফলে পরিবারের সকল সদস্যের মৃত্যু ডেকে আনছেন আপনিই।

সম্প্রতি গবেষকরা বলেছেন, মশা মারতে আপনি তো আর বাড়িতে কামান দাগতে পারেন না। অগত্যা মশা মারার কয়েল।

সেই কয়েল ব্যবহার করে মশা মারতে গিয়ে ডেকে আনছেন নিজের মৃত্যু।

তারা বলেন, কয়েল ব্যবহারে শ্বাসকষ্ট, কাশি ও ফুসফুসের সমস্যা দেখা দেয়। এটি ফুসফুসের ক্যান্সারের সম্ভাবনা ৪০ শতাংশ বাড়িয়ে দেয়। আবার কয়েলের সূক্ষ্ম গুঁড়ো শ্বাসনালী এবং ফুসফুসের পথে গিয়ে জমা হয়। এতে করে বিষাক্ত সংক্রমণ হয়। আবার দীর্ঘদিন ব্যবহারে চোখের ভয়ানক ক্ষতি হয়। মানুষের শরীরে স্লো পয়জনিং করে। হার্টের সমস্যা দেখা দেয়।

প্রায় সমস্ত মশার কয়েলেই থাকে অ্যালেট্রিন। এটি মস্তিষ্ক ও রক্তের ভেদ্যতা বাড়িয়ে দেয়। কয়েলের ধোঁয়া শিশুদের জন্য আরও বেশি বিপজ্জনক, দাবি বিশেষজ্ঞদের।

এছাড়া মশার কয়েলে আরও নানা বিপদ হতে পারে বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। এর ফলে ডেঙ্গু, প্রচণ্ড জ্বর, তীব্র মাথাব্যথা, চোখের পিছনে ব্যথা, মাংসপেশিতে ও হাড়ের সংযোগস্থলে ব্যথা, র‍্যাশ, বমি বমি ভাব, ম্যালেরিয়া প্রভৃতি হতে পারে।


মন্তব্য