kalerkantho


ডয়চে ভেলের প্রতিবেদন

খোলামেলা ছবি প্রকাশের আগে একবার ভাবো

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৭:৪৮



খোলামেলা ছবি প্রকাশের আগে একবার ভাবো

তরুণ প্রজন্মের কাছে খুব প্রিয় অ্যাপ ‘স্ন্যাপচ্যাট'৷ এখানে চ্যাট করলে নিজে থেকে মুছে যায়, কিছু শেয়ার করলে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হারিয়ে যায়৷ কে, কতটা দেখছে তা নিয়ন্ত্রণও করা যায়৷ তাই তন্বীরা নিশ্চিন্তে কাপড়ে খোলেন৷
হালের পশ্চিমা কিশোর-কিশোরী, তরুণ-তরুণীরা একটা দিকে বেশ খেয়াল রাখেন৷ নিজেকে যতটা সম্ভব ‘সেক্সি' একটা ইমেজ গড়ার চেষ্টা থাকে তাদের মধ্যে৷ বিশেষ করে তাদের অনলাইন প্রোফাইলগুলোতে যেসব ছবি তারা শেয়ার করেন, তাতে অধিকাংশ সময়ই থাকে নিজেকে যতটা সম্ভব আকর্ষণীয় করে উপস্থাপনের এক চেষ্টা৷
নিজের যৌন আবেদনময়ী, খোলামেলা ছবি প্রকাশের ক্ষেত্রে হালের প্রজন্মের অন্যতম পছন্দ ‘স্ন্যাপচ্যাট'৷ ওটা নাকি বেশ নিরাপদ৷ কতটা নিরাপদ সেটা বুঝতে আমি নিজেই খানিকটা ঘাটাঘাটি করলাম৷ অল্পতেই বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় কন্টেন্ট শেয়ারের ওয়েবসাইট রেডিটে এক গ্রুপের সন্ধান পেলাম৷ সেই গ্রুপ তরুণ, তরুণীদের বিশেষ করে তরুণীদের অর্ধনগ্ন, পুরো নগ্ন ছবি আর ছোট ছোট ভিডিওতে সয়লাব৷
সেই গ্রুপে খানিকটা বিচরণ করে বুঝলাম, স্ন্যাপচ্যাটে বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করা বিভিন্ন কন্টেন্ট কোনো না কোনভাবে বেহাত হয়ে পৌঁছে যায় রেডিটের সেই গ্রুপের মতো আরো অনেক অনলাইন ঠিকানায়৷ এ সব ছবি, ভিডিওতে থাকা মানুষরা নিজেদের ইচ্ছাতেই সেগুলো পোস্ট করেন স্ন্যাপচটে৷ কিন্তু নির্দিষ্ট বন্ধুর গণ্ডির মধ্যকার কেউ সেগুলো ছড়িয়ে দেন ইন্টারনেটের অনিয়ন্ত্রিত দুনিয়ায়৷
পশ্চিমা সমাজে একজন তরুণীর খোলামেলা পোশাক কিংবা অর্ধনগ্ন বা নগ্ন ছবি প্রকাশ এমন বড় কোনো ব্যাপার নয়৷ কিন্তু আমাদের বাঙালি সমাজে বিষয়টি এখনো সেরকম পর্যায়ে পৌঁছায়নি৷ ফলে আমাদের রক্ষণশীল সমাজে কোন তরুণীর সামান্য খোলামেলা ছবিই সমাজে তাকে নানারকম নেতিবাচক উপাধিতে ভূষিত করতে পারে৷
জ্যাকুলিন মিথিলার কথাই ধরুন৷ ফেসবুক লাইভে বেশ খানিকটা খোলামেলা অবস্থায় উপস্থিত হতেন তিনি৷ নিজেকে বাংলার সানি লিওনি দাবি করে লাইভ ভিডিওতে বুকের কাপড় সরিয়ে নিয়েছেন তিনি৷ দৃশ্যত নগ্ন হতেও দেখা গেছে তাঁকে৷ তাঁর এসব ভিডিও লাখ লাখবার দেখা হয়েছে ফেসবুকে, ইউটিউবে৷
মিথিলা কিছুদিন আগে আত্মহত্যা করেছেন৷ সংসার টেকাতে পারেননি তিনি৷ আমাদের সমাজ অর্ধনগ্ন মিথিলাকে দেখে নিজের গোপন বাসনা মেটাতে পারলেও প্রকাশ্যে তাকে মেনে নিতে পারেনি৷ একজন বাঙালি স্বামীর পক্ষে হয়ত নিজের স্ত্রীকে ফেসবুক, ইউটিউবে অর্ধনগ্ন দেখা সম্ভব হয়নি৷ যদিও মিথিলা নাকি লাখ টাকা খরচ করে শাশুড়ির চিকিৎসা করিয়েছিলেন৷ সেই টাকা তিনি রোজগার করেছিলেন নিজের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের খ্যাতিকে কাজে লাগিয়েই৷ নিজের বাবামায়ের সংসারের খরচও নাকি যোগাতেন তিনি৷ সেই মিথিলা প্রকাশ্যে ঘোষণা দিয়ে আত্মহত্যা করলেও কেউ তাঁকে বাঁচাতে যায়নি৷
মিথিলার মতো আরো কয়েক তরুণী এখন ফেসবুক লাইভে বেশ আলোচিত চরিত্র৷ নিজেদের যৌনজীবন, পুরুষের যৌনতা নিয়ে খোঁচা দেয়া নানা মন্তব্য তারা করছেন লাইভে৷ সেগুলো রেকর্ড হয়৷ ছড়িয়ে যায় ইন্টারনেটে৷ কেউ কেউ আবার নিজের প্রোফাইল থেকে মুছে ফেলেন সেগুলো৷ কিন্তু থেকে যায় ইউটিউব-এ বা এমএসএস-এ৷
একজন মানুষের অনলাইন জীবন কী হবে, সেটা নির্ধারণের স্বাধীনতা তাঁর অবশ্যই আছে৷ কিন্তু তিনি কোথায় অবস্থান করছেন সেটাও একটা ফ্যাক্টর৷ পশ্চিমা সমাজে যা চলে আমাদের বাঙালি সমাজে তা চলে না৷ তাই বাঙালি তরুণীদের বলছি, ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম, স্ন্যাপচ্যাটে খোলামেলা ছবি দেয়ার আগে আরেকবার ভাবো৷ একবার কিছু ইন্টারনেটে ছড়িয়ে গেলে তা আর ফেরানো যাবে না৷ আজ যা এক্সাইটিং মনে হচ্ছে, কাল তা নাও হতে পারে৷

। ।

মন্তব্য