kalerkantho


বাংলা উচ্চারণের সংক্ষিপ্ত সূত্রাবলি (১৩)

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৬:১২



বাংলা উচ্চারণের সংক্ষিপ্ত সূত্রাবলি (১৩)

বাংলা্ উচ্চারণের বিশেষ কিছু নিয়ম রয়েছে। রেডিও-টিভিতে প্রচারিত খবর, আবৃত্তি বা শিল্পীর কণ্ঠে গান শুনতে গিয়ে আমরা বিষয়টি টের পাই। বুঝতে পারি, আর দশজন থেকে তাদের উচ্চারণে ভিন্নতা রয়েছে। কিন্তু কিসে তাদের উচ্চারণে ভিন্নতা এনে দেয়, তা বুঝতে পারি না। 'বাংলা উচ্চারণের সংক্ষিপ্ত সূত্রাবলি' আত্মস্থ করার মধ্য দিয়ে আপনিও শুদ্ধ উচ্চারণে বাংলা বলা শিখে নিতে পারেন।

২৮ পর্বে সাজানো এ ধারাবাহিকের আজ থাকছে পর্ব ১৩।

বাংলা উচ্চারণে অ-এর মতো আ স্বরধ্বনির উচ্চারণে তেমন কোনো বিভ্রান্তি নেই। প্রায় সর্বত্রই আ-কারের উচ্চারণ অবিকৃত থাকে, তবে সামান্য দু-এক জায়গায় ব্যতিক্রম ঘটে। যেমন একাক্ষর আ দীর্ঘ উচ্চারিত্-রাগ (রা-গ্), ভাগ (ভা-গ্), থাক (থা-ক্)। এখানে আ-কারের উচ্চারণ যেমন দীর্ঘ, ভাগা, রাগা, থাকা-তে কিন্তু আ-কার তেমনি দীর্ঘরূপে উচ্চারিত নয়।

শব্দের আদিতে স্বতন্ত্রভাবে ব্যবহৃত এ কিংবা আদি ব্যঞ্জনে যুক্ত এ ভিন্ন, সর্বত্র এ-র উচ্চারণ অবিকৃত থাকে।

আদিতে ব্যবহৃত স্বতন্ত্র এ বা ব্যঞ্জনে যুক্ত এ-র উচ্চারণ মাঝেমধ্যে অ্যা-এর মতো হয় (ইংরেজি অ্যাট, ক্যাট-এ ব্যবহৃত এ-র মতো)। এ উচ্চারণকে অনেকে ‘বাঁকা এ’ বলে থাকে। সংস্কৃতে কিংবা প্রাকৃতে এ-কারের এ ধরনের উচ্চারণের সন্ধান মেলে না। সে যা-ই হোক, আদ্য এ-কারের উচ্চারণ কোথায় বিকৃত বা বাঁকা হবে কিংবা হবে না তা দেখা যাক। শব্দের প্রথমে যদি এ-কার (ব্যঞ্জনে যুক্তও হতে পারে) এবং তার পরে ই, ঈ, উ, ঊ, এ, হ, য়, র, শ এবং ল থাকে, তবে সাধারণত এ-এর উচ্চারণ বিকৃত বা বাঁকা হয় না।

ক. ই কিংবা ঈ থাকলে-একি, দেখি, মেকি, ঢেঁকি, দেশি, পেশি, বেশি ইত্যাদি।
খ. উ-একুনে, সেগুনে, বেগুন, রেঙ্গুন, বেদুইন, কেয়ুর ইত্যাদি।
গ. এ-মেয়ে, এনে, চেয়ে, এযে, সেজে, দেখেছি, রেগে, বেগে, যেতে ইত্যাদি।
অবশ্য এ নিয়মের কিছু ব্যতিক্রমও দেখা যায়। যেমন-একের (অ্যাকের), একে-একে (অ্যাকে-অ্যাকে) ইত্যাদি।
ঘ. য়-শ্রেয়, প্রেয়, চেয়ার, দেয়াল, মেয়াদ, পেয়াদা, পেঁয়াজ, খেয়া, নেয়া, কেয়া, মেয়র ইত্যাদি। ব্যতিক্রম-দেয় (দ্যায়), নেয় (ন্যায়) ইত্যাদি।
ঙ. র-এর, সের, টের, ঢের, ঘের, জের, বের ইত্যাদি।
চ. উষ্মবর্ণ (শ, ষ, স, হ)-বেশ, লেশ, দেশ, পেশ, শেষ, এস (এসো), কেহ, দেহ, স্নেহ, মেহ, বেহারা, বেহালা, লেহন ইত্যাদি।
ছ. ল-তেল, বেল, মেল, শেল, জেল, এল, ভেল, ফেল, রেল ইত্যাদি।

সৌজন্যে- ভাষা শহিদ কলেজ, গাজীপুর


মন্তব্য