kalerkantho


বাংলা উচ্চারণের সংক্ষিপ্ত সূত্রাবলি (১১)

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৯:৫৬



বাংলা উচ্চারণের সংক্ষিপ্ত সূত্রাবলি (১১)

বাংলা উচ্চারণের বিশেষ কিছু নিয়মকানুন রয়েছে। রেডিও-টিভিতে প্রচারিত খবর, আবৃত্তি বা শিল্পীর কণ্ঠে গান শুনতে গিয়ে আমরা বিষয়টি টের পাই।

বুঝতে পারি, আর দশজন থেকে তাদের উচ্চারণে ভিন্নতা রয়েছে। কিন্তু কিসে তাদের উচ্চারণে ভিন্নতা এনে দেয়, তা বুঝতে পারি না। 'বাংলা উচ্চারণের সংক্ষিপ্ত সূত্রাবলি' আত্মস্থ করার মধ্য দিয়ে আপনিও শুদ্ধ উচ্চারণে বাংলা বলা শিখে নিতে পারেন। আজ থাকছে পর্ব ১১।

বিশেষ্য শব্দের শেষে হ এবং বিশেষণ শব্দের শেষে ঢ় (ড়+হ) থাকলে অন্ত অ-এর বিলুপ্তি ঘটে না-গূঢ়, গাঢ়, দেহ, স্নেহ, কলহ, বিবাহ, সিংহ ইত্যাদি। এখানে অ উচ্চারণে ও হয়ে যায়-গুড়হো, দেহো, স্নেহো, কলোহো, বিবাহো, শিংহো ইত্যাদি।
ত এবং ইত প্রত্যয়যোগে গঠিত বিশেষণ শব্দের অন্তিম অ-এর বিলুপ্তি হয় না-গীত, নত, রত, পুলকিত, রক্ষিত ইত্যাদি। কিন্তু এ ধরনের শব্দই যখন বিশেষ্যরূপে ব্যবহৃত হয়, তখন অ-কারের বিলুপ্তি ঘটে। গীত (গীৎ), রক্ষিত (রোকখিত্ পদবি অর্থে)।

সৌজন্যে : ভাষা শহিদ কলেজ


মন্তব্য