kalerkantho


হায় রাজনীতি: ভোটারদের সহানুভূতি পেতে আপন ভাইকে হত্যা!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৫:৩৫



হায় রাজনীতি: ভোটারদের সহানুভূতি পেতে আপন ভাইকে হত্যা!

নিহত বিনোদের স্বজনের আহাজারি

বিধানসভা নির্বাচনে ভোটারদের সহানুভূতি আদায়ে নিজের মায়ের পেটের ভাইকে হত্যা করিয়েছেন এক নেতা। ভারতের উত্তর প্রদেশের এই নেতার নাম মনোজ কুমার গৌতম।

এ ঘটনায় ভারতের উত্তর প্রদেশের বুলন্দশহর এলাকার খুর্জা আসনের প্রার্থী আরএলডি নেতা মনোজ, তার দুই সহযোগী ও এক ড্রাইভারকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, পূর্ব পরিকল্পনা বাস্তবায়নে মনোজ নিজ ভাই বিনোদ কুমার ও তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু সচিনকে অপহরণ ও পরে হত্যা করেন অনুগত ক্যাডারদের দিয়ে।   নির্বাচনে বাজীমাত করতে এই কায়দায় প্রতিপক্ষ দলের ওপর দোষ চাপিয়ে ‘সহানুভূতি ভোট’ বাগাতে চাইছিলেন তিনি।  

 ৭ ফেব্রুয়ারি সকালে খুর্জার আগ্রবাল ফটকের পাশের জঙ্গল থেকে দুই বন্ধুর লাশ উদ্ধার হয়।   আগের রাত অর্থাৎ ৬ ফেব্রুয়ারি বিনোদ নিজের স্করপিয়ন গাড়িতে করে আরএলডি নেতা জয়ন্ত চৌধুরীর জনসভা শেষে তাকে এগিয়ে দিতে আগ্রবাল ফটক যান। এসময় সচিনও সঙ্গে ছিলেন। এরপর থেকে তারা দুই বন্ধু নিখোঁজ হন।

পুলিশ জানায়, ওই স্থান থেকেই তাদের অপহরণ করা হয়। এরপর পাশের জঙ্গলে নিয়ে মনোজ গৌতমের লাইসেন্স করা পিস্তল দিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয় বিনোদ ও সচিনকে।

পুলিশের হেফাজতে থাকা মনোজ অবশ্য সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, এসবই হচ্ছে তার প্রতিদ্বন্দ্বী বিএসপি দলের প্রার্থী অর্জুন সিংয়ের ষড়যন্ত্র।

তবে পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মনোজের লাইসেন্স করা পিস্তলটি উদ্ধার করেছে। এছাড়া ভাইকে খুন করতে মনোজের পাঠানো কিলিং স্কোয়াডের সদস্যদের সঙ্গে তার কথোপকথনের অডিও ক্লিপও রয়েছে পুলিশের হাতে।

প্রথমদিকে মনোজ ছিলেন বিএসপি কর্মী। স্কুলের সাধারণ একজন কেরানি থেকে রাজ্যে মায়াবতীর শাসনামলে হঠাৎ করেই যেন বড় নেতা বনে যান। পার্টি তাকে প্রতিশ্রুতি দেয় বিধানসভা নির্বাচনে প্রার্থী করার। কিন্তু নির্বাচন ঘনিয়ে এলে মনোজের বদলে অর্জুন সিংকে টিকিট দেয় দল। এতে ক্ষুব্ধ মনোজ আরএলডি নেতা অজিত সিংয়ের  সঙ্গে দেখা করে একই আসনে তার দলের টিকিটে মনোনয়ন নেন।

 


 


মন্তব্য