kalerkantho


ভোটভিক্ষুকরা বেখবর, পাহাড় কেটে রাস্তা বানালো গ্রামবাসী

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৮:৫৯



ভোটভিক্ষুকরা বেখবর, পাহাড় কেটে রাস্তা বানালো গ্রামবাসী

পরম উৎসাহে রাস্তা বানাচ্ছে ছিন্দবাহার গ্রামের সাহসী নারী-পুরুষ

দুর্গম গ্রামটি থেকে সবচেয়ে কাছের গ্রামে যেতে হলেও পেরোতে হয় ১২ কিলোমিটার পথ। অথচ পাশের পাহাড়ের একটু অংশ কেটে অল্প কিছুদূর রাস্তাটা টেনে নিলেই ওই দূরত্ব কমে যায় পাক্কা ৯ কিলোমিটার!

১২ কিলোমিটার রাস্তা কমে ৩ কিলোমিটারে নেমে আসে।

অনেক কষ্ট, সময় আর অর্থ বেঁচে যায়।

বিষয়টি নিয়ে সরকারি দফতরে আর নেতাদের কাছে দৌড়াদৌড়িও হয়েছে বিস্তর। পায়ের জুতা-স্যান্ডেল ক্ষয় করেছেন গ্রামের কেউ কেউ। কিন্তু যেই কে সেই- সরকারি লোকজন বা নেতারা টলেন না আর ওদিকে পাহাড়ও হিলে না। শেষমেষ একদিন হতাশা আর বিরক্তির চরম সীমায় গিয়ে গ্রামবাসী একজোট হয়ে কঠিন সিদ্ধান্ত নেন- আর কারও কাছেই দয়া ভিক্ষা চাইবেন না। যদিও ভোটের সময়ে একটা ভোটের জন্য গ্রামবাসীর হাতে-পায়ে ধরে যা তা কাণ্ড করে বসে ওই ভোটভিক্ষুকরা।

যাহোক, গ্রামের সবাই ঠিক করলেন, পাহাড় খুড়ে রাস্তা তারাই বানাবেন। প্রতিজ্ঞা বাস্তাবায়নে নেমেও গেলেন তারা। আক্ষরিক অর্থেই প্রমাণ করলেন, ইচ্ছা থাকলে নিজ হাতে পাহাড় কেটেও রাস্তা করা যায়।

গ্রামের শত শত নারী-পুরুষ সাফল-গাঁইতি নিয়ে কাঁধ কাঁধে মিলিয়ে নেমে পড়েন পাহাড়কে পদানত করার কাজে।

সম্প্রতি এমন ঘটনা ঘটেছে ভারতের ছত্তিশগড়ের বাস্তর জেলার তোকাপাল এলাকার পাহাড়ি গ্রাম ছিন্দবাহারে।


মন্তব্য