kalerkantho


শিম্পাঞ্জিদের বিরল কাণ্ড : নৃশংসভাবে নেতাকে হত্যা, তারপর...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ১৪:৪৮



শিম্পাঞ্জিদের বিরল কাণ্ড : নৃশংসভাবে নেতাকে হত্যা, তারপর...

একটি বিরল ঘটনা ঘটে গেল শিম্পাঞ্জি পরিবারে। একদল শিম্পাঞ্জি তাদের নেতাকে মেরে ফেলল। শুধু তাই নয়, এর পর ঘটল আরো বিস্ময়কর ঘটনা। তারা নেতার মৃতদেহ খেতে শুরু করল। 'ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব প্রাইমেটোলজি'তে প্রকাশিত এক গবেষণাপত্র এ ঘটনা তুলে ধরা হয়। তবে শিম্পাঞ্জিদের দলের সদস্যকে হত্যা করার ঘটনা এই প্রথম নয়, কিন্তু বিরল তো বটেই। এবারেরটা নবম খুনের ঘটনা হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

২০০৭ সালের কথা। সেনেগালে ৩০টি শিম্পঞ্জির একটি দলের নেতা ছিলেন ফোডুকো। এ তথ্য জানানো হয় ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের একটি রিপোর্টে। নেতা শিম্পাঞ্জি 'সাদ্দাম' নামে পরিচিত ছিল।

অ্যানথ্রোপলজিস্ট জিল প্রুয়েৎজ জানান, ফোডুকো ওরফে সাদ্দাম কিন্তু স্বৈরাচার নেতা ছিল। তবে সে কয়েক বছর ধরে নির্বাসিত ছিল।

২০১৩ সালে নেতাকে হত্যা করে একদল কম বয়সী শিম্পাঞ্জি। তাকে মেরে দেহ একেবারে চিড়ে ফেলে এবং কিছু অংশ খেয়েও ফেলে। এই বীভৎস ঘটনা দীর্ঘ সময় ধরে চলে। প্রায় ৪ ঘণ্টা ধরে তারা মৃতদেহের ওপর আক্রোশ দেখিয়ে চলে।

নেতার দেহের হাড় ভাঙে তারা। পাথর দিয়ে মারে এবং দেহটি ছিঁড়ে ফেলে। এ ঘটনা দেখে তাজ্জব বনে যান বিজ্ঞানীরা।

তবে এ ঘটনার পেছনে শেষ পর্যন্ত মানুষকেই দায়ী করা যায় বলে মনে করেন প্রুয়েৎজ। ফুডুকোর সমাজ সংখ্যায় প্রায় দ্বিগুণ হয়ে গিয়েছিল। পুরুষ শিম্পাঞ্জির সংখ্যা বেশ বেড়ে যায়। এ ছাড়া পোচার বা অবৈধ প্রাণী ব্যবসায়ীদের লক্ষ্যবস্তু এসব শিম্পাঞ্জি। এসব ঘটনায় তাদের মাঝে উত্তেজনা চড়তে থাকে। সম্ভবত কোনো স্ত্রী শিম্পাঞ্জির প্রতি প্রেম নিবেদন করতে গিয়েই অন্যদের রোষানলে পড়ে ফোডুকো। এ ছাড়া স্বৈরাচার আচরণের কারণেও তার প্রতি অন্যদের ব্যাপক ক্ষোভ ছিল। কতটা ব্যাপক তা এ ঘটনার মাধ্যমেই আঁচ করা যায়।

এই বিরল ঘটনার মাধ্যমে শিম্পাঞ্জিদের আরো স্পষ্টভাবে বোঝা যাবে বলেই মনে করছেন বিজ্ঞানীরা। তাদের সামাজিক নিয়ম-কানুন আরো পরিষ্কার হবে।
সূত্র : ফক্স নিউজ

 


মন্তব্য