kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মা জানালেন কিভাবে পালক পুত্র চাকু নিয়ে আক্রমণ করেছিল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ অক্টোবর, ২০১৬ ১৭:২০



মা জানালেন কিভাবে পালক পুত্র চাকু নিয়ে আক্রমণ করেছিল

পালক ছেলের ভয়ংকর আক্রমণের শিকার হলেন মা। জানালেন, কিভাবে শিশুদের মারাত্মক ও হিংস্র আচরণ সামলে নিতে হয়।

লিডিয়া (ছদ্মনাম) জানান, পালক নেওয়া সন্তানরা তাকে এবং তার স্বামীকে আক্রমণ করতো। তারা মারতো, কামড়াতো এবং লাতি দিতো। তাদের ১০ বছর বয়সী ছেলে তো একবার চাকু নিয়ে আক্রমণ করতে এসেছিল।

ক্যামব্রিজশায়ারে থাকেন তারা। লিডিয়া জানান, ১০ বছর বয়সী ছেলে আমাকে মারতে এসেছে। বিষয়টি খুবই কষ্টদায়ক ও অস্বস্তিকর।

তার স্বামী জানান, আমার সন্তানদের আমি ঘৃণা করতে শুরু করেছি। ছেলেটি একেবারে ছোট। কিন্তু তার মাকে আঘাত করেছে।

এই পরিবারের অবস্থা নতুন কিছু নয়। এই স্বামী-স্ত্রী বাবা-মায়ের ওপর সন্তানের হিংস্র আচরণের বিষয়ে সচেতন করতে চান সবাইকে। ব্রিটেনে চলমান ন্যাশনাল অ্যাপাপটেশন উইক উপলক্ষে এ ঘটনা শেয়ার করেছেন তারা।

ইউনিভার্সিটি অব ব্রিস্টলের এক গবেষণায় বলা হয়, ৩৯০ দম্পতি ৬৮৯ জন ছেলে-মেয়েকে দত্তক নিয়েছেন। এই বাবা-মায়েদের প্রায়ই সন্তানের হিংস্র আক্রমণের শিকার হয়ে থাকেন। গবেষণায় দেখা যায়, বাবা-মায়ের ওপর সন্তানদের ভায়োলেন্স বেড়েছে ৫৭ শতাংশ। হুমকি দিতে ১৯ জন শিশু চাকু ব্যবহার করে।

লিডিয়ার এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে ১৮ মাস আগে থেকে। তখন থেকেই তিনি নন ভায়োলেন্ট রেজিস্ট্যান্স (এনভিআর) কোর্স শুরু করেছিলেন। বললেন, এইসব ছেলে-মেয়েদের নিয়ে আমরা সুন্দর ভবিষ্যত দেখতে চাই। তারা যেন মানুষ হয়ে গড়ে ওঠে।

অ্যাডাপশন ইউকের চিফ এক্সিকিউটিভ হুই থর্নবেরি জানান, বাবা-মা এবং সন্তানদের এ বিষয়ে সচেতন হতে হবে। এতে করে পালক গ্রহণের পর তা আবার ছেড়ে দেওয়ার হার কমে আসবে। বাবা-মায়েদের বুঝতে হবে কি করতে হবে না। এমন আচরণ করতে হবে যাতে করে ক্ষোভ ও হিংস্র মনোভাবের অস্তিত্ব না থাকে।

যে সকল শিশু ট্রমা বা বিদ্বেষি আচরণের শিকার হয়, তারাই এমন করতে উদ্যত হয়ে ওঠে। বাবা-মায়ের পক্ষ থেকে এমন আচরণে তারা নিরাপত্তহীনতায় ভোগে। এগুলোকে অনেক সময়ই পাত্তা দেওয়া হয় না। এসব শিশুর একটু ভিন্ন ঘরাণার পিতৃত্ব ও মাতৃত্ব দরকার হয়। আবার তাদের কিছু আচরণের বিষয়ে সীমাবদ্ধতা বেঁধে দিতে হবে। নয়তো এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটতেই থাকবে। সূত্র : হাফিংটন পোস্ট

 


মন্তব্য