kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


একটি গরুর মৃত্যুতে সিঙ্গাপুরের সবাই দুঃখিত, কিন্তু কেন?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ১৪:৪১



একটি গরুর মৃত্যুতে সিঙ্গাপুরের সবাই দুঃখিত, কিন্তু কেন?

সম্প্রতি সিঙ্গাপুরে একটি গরুর মৃত্যু ঘটেছে। আর এ মৃত্যুতে বহু মানুষই দুঃখ পেয়েছেন।

কিন্তু কী কারণে একটি গরুর মৃত্যুতে সবাই দুঃখিত এ বিষয়টি জানতে হলে আরও কিছু তথ্য জানতে হবে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিবিসি।
সিঙ্গাপুরের ক্ষুদ্র দ্বীপ কোনি আইল্যান্ড। এ দ্বীপটিতে ছিল সিঙ্গাপুরের একমাত্র বন্য গরুর। তবে সিঙ্গাপুরের শেষ বন্য গরুটি এবার মারা গেল। আর তাই গরুটির বিয়োগব্যথায় দুঃখিত সবাই।

সিঙ্গাপুরের কোনি আইল্যান্ডে বাস করত নামহীন ষাঁড়টি। তবে কিভাবে দ্বীপটি এ ষাড়ের আবাসস্থল হয়ে উঠেছিল, তা জানেন না কেউই।

এ বিষয়ে সিঙ্গাপুরের ন্যাশনাল পার্কস বোর্ডের মুখপাত্র বলেন, 'প্রাণীটি সম্ভবত সবাইকে অবাক করেছে। এর সন্ধান পাওয়া যায় যখন ড্যাম ক্রসিং তৈরি করা হয় তখন। '

প্রায় একবছর আগে দ্বীপটিতে সিঙ্গাপুর ন্যাশনাল পার্ক প্রতিষ্ঠিত হয়। আর এটি টুরিস্টদের হাইকিং ও সাইক্লিংয়ের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। এরপর থেকেই গরুটি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে। এর কোনো সঙ্গীরও সন্ধান পাওয়া যায়নি। নানা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে দর্শনার্থীরা সিঙ্গাপুরের একমাত্র বন্য গরুটিকে পরিচয় করিয়ে দেন। ফলে পার্কের একটি অন্যতম আকর্ষণ হয়ে ওঠে গরুটি।

বন্য গরুটি পার্কের দর্শনার্থীদের আকর্ষণের বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। দর্শনার্থীদের এ গরুর সামনে পড়লে কী করতে হবে, সে সম্পর্কে নির্দেশনাও তৈরি করা হয়। সে সাইন বোর্ডে গরুটিকে ফ্লাশ দিয়ে ছবি তোলা নিষেধ করা হয়। এ ছাড়া তাকে বিরক্ত করা ও খাবার দিতে নিষেধ করা হয়।

সম্প্রতি গরুটি অসুস্থ হয়ে পড়ে। এরপর চিকিৎসকও গরুটিকে দেখে যান। যদিও এরপর হঠাৎ করে তার মৃত্যু হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন গরুটির নানা শারীরিক জটিলতায় মৃত্যু হয়েছে।

জনপ্রিয় এ গরুটির মৃত্যুতে বহু মানুষই দুঃখিত হয়েছেন। তারা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট দিয়ে এ জন্য দুঃখ প্রকাশ করছেন।


মন্তব্য