kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


এত বড় পালতোলা নৌযান আগে কেউ দেখেনি

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ অক্টোবর, ২০১৬ ১৪:১১



এত বড় পালতোলা নৌযান আগে কেউ দেখেনি

এর আগে এত বড় পালতোলা নৌযান তৈরি হওয়ার কোনো রেকর্ড নেই। সম্প্রতি এ রেকর্ডই গড়লেন রাশিয়ান এক বিলিয়নেয়ার।

ইয়টটির বিশাল আকারের কারণে একে সুপারইয়ট বলা হচ্ছে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ডেইলি মেইল।

সেইলিং ইয়ট এ নামে সুপারইয়টটি তৈরি করা হচ্ছে জার্মানির কিয়েলে। এটি ৪৬৮ ফুট দৈর্ঘ্যবিশিষ্ট। শুধু তাই নয়, এর পালের উচ্চতা প্রায় ৩০০ ফুট। আর এ কারণে ইয়টটি পালতোলা নৌযানের ক্ষেত্রে বিশ্বরেকর্ড গড়েছে।

রাশিয়ান বিলিয়নেয়ার অ্যান্ড্রে ইগোরেভিচ মেলনিচেনকো এ ইয়টটি বানাচ্ছেন জার্মান শিপইয়ার্ডে। এটি স্বাভাবিকভাবে প্রতিঘণ্টায় প্রায় ১৮ মাইল গতিতে চলাচল করবে। তবে প্রয়োজনে তা ২৪ মাইল পর্যন্ত গতি অর্জন করতে পারবে।

ইয়টটির হালগুলো স্টিলের তৈরি। তবে এর অভ্যন্তরে টিক ফিনিশিং ব্যবহৃত হয়েছে।
ইয়টটির মালিক রাশিয়ান বিলিয়নেয়ার মেলনিচেনকোর মোট সম্পদের পরিমাণ প্রায় ৯ বিলিয়ন ডলার। আর তার যেসব ব্যবসা রয়েছে তার মধ্যে সার কারখানা ও কয়লা ব্যবসা রয়েছে। এ ছাড়া তার বিদ্যুৎ উৎপাদন ও পাইপ রপ্তানির ব্যবসাও রয়েছে।

সুপারইয়টটি তৈরি করতে ব্যয় হচ্ছে প্রায় ৩৩০ মিলিয়ন পাউন্ড। এতে বিলাসবহুল সব ব্যবস্থাই রয়েছে। পাশাপাশি এতে রয়েছে একটি হেলিকপ্টার নামার জন্য হেলিপ্যাডও।

ইয়টটিতে পাল তোলার ব্যবস্থা থাকলেও শুধু যে বাতাসের শক্তিতে চলাচল করে, এমনটা নয়। এতে রয়েছে হাইব্রিড ডিজেল-ইলেক্ট্রিক সিস্টেম। ফলে বহু ধরনের আবহাওয়াতেই এটি চলতে পারে।

ইয়টটির আরেকটি বৈশিষ্ট্য হলো এর একেবারে নিচের ডেকের কাচের আন্ডারওয়াটার লাউঞ্জ। সেখান থেকে পানির নিচের দৃশ্য দেখা যায়।

ভিডিওতে দেখুন ইয়টটি :


মন্তব্য