kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


যে কারণে ডিভোর্স নিয়ে কথা বলতে চায় না পুরুষরা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১২ অক্টোবর, ২০১৬ ১৫:৩৫



যে কারণে ডিভোর্স নিয়ে কথা বলতে চায় না পুরুষরা

পুরুষ এবং বিবাহবিচ্ছেদ বিষয়ে কিছু লেখার চিন্তা করলেন শিলা কুমার। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে তার চিন্তা পাল্টে দিলেন তারই এক পুরুষ বন্ধু।

ওই বন্ধু বললেন, এ বিয়ষটি নিয়ে কেন লিখতে হবে? পাল্টা প্রশ্ন করলে লেখিকা, কেন করতে হবে না? বন্ধু বললেন, পুরুষরা বিচ্ছেদ বিষয়ে কখনও কথা বলতে ও পড়তে পছন্দ করে না।

তাই দেখলেন শিলা। পুরুষরা প্রেম, বিয়ে ইত্যাদি বিষয় নিয়ে বিশদ আলোচনা করতে চায় না। এগুলো সংসারের বিষয়। তার মানে এই নয় যে, পুরুষরা নিজেদেরকে হৃদয়ঘটিত বিষয়, বিয়ে বা প্রেমে জড়ান না।

শিলা বলছেন, আমার লিখার বিসয় দেখে হয়ত পুরুষরা ভাববেন আমি নারীবাদী মানুষ। কিন্তু তা নয়। আমি পুরুষদের পছন্দ করি। তারা যথেষ্ট মজার হয়। তারা অনেক করিৎকর্মা। কত কাজ করে বেড়ান। তারা যথেষ্ট সদয় হয়ে থাকেন। অনেক সময় দায়িত্বশীল নন বলে আচরণ করেন। তবে তাদের বয়স যখন ২১-২২ তখন এমনটা হতে পারে। কিন্তু ৩০, ৩৫ বা ৪২ বছর বয়সে তারা নারীর কাছে আত্মসমর্পণ করতে চান। এরপর থেকে তারা আর সেই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে চান না।

বিবাহিত পুরুষ যখন স্ত্রীর সঙ্গে বাজে ব্যবহার করেন, তখন স্পষ্ট বুঝতে পারেন যে তিনি খারাপ ব্যবহার করছেন। একদিন এই নারী হয়ত তাকে ছেড়ে চলে যান। পুরুষ তখন এলোমেলো হয়ে যান। বাড়ি ফিরে যন্ত্রণা সামাল দেন কোনোভাবে। এ অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে তাকে অনেক সময় ব্যয় করতে হয়। আসলে এখানে আমি একই অবস্থায় নারীদের বিষয়টি নিয়ে কথা বলছি না। আমি কেবল বলতে চাইছি, নারীদের মতো পুরুষরাও গভীরভাবে কষ্ট পায়। যে নারীকে আবেগময় মন নিয়ে ছুটে গিয়ে বিয়ে করেছেন, সে না থাকাতে তার কি হতে পারে? যা করলে নিজের সঙ্গে নেতিবাচক কিছু ঘটতে থাকে তাই করতে থাকে পুরুষরা। হঠাৎ করেই সে অস্ট্রিচের মতো হয়ে যান। মুখ লুকিয়ে যন্ত্রণা থেকে দূরে থাকতে চান। মিথ্যা আনন্দ উপভোগে এটা সেটা করাটা আরো যন্ত্রণাদায়ক হয়ে ওঠে। কিন্তু সব সময় মন খারাপ করে কি হবে ভাবাটা প্রতিনিয়তের কাজ হয়ে ওঠে।

জীবনের এই আচমকা পরিবর্তনে হচকিত হয়ে যান তারা। তবে কি করা উচিত তার একটা পরিকল্পনা তৈরি করে ফেলেন। নতুন একটি ছবি দেখা, একটু দূরে ঘুরতে যাওয়া ইত্যাদি কাজের একটা তালিকা প্রস্তুত করতে দেরি করেন না। কিন্তু যে নারী এতদিন তার স্ত্রী হয়ে ছিলেন, তিনি হঠাৎ করেই অন্য কেউ হয়ে গেলেন- এ বিষয়টি তারা মেনে নিতে পারেন না।

আসলে পুরুষের দুনিয়ায় এই বিচ্ছেদ তাদের ক্রমেই অধঃপতনের দিকে নিতে থাকে। এটা তাদের সহ্যক্ষমতার বাইরেই থাকে। হয়ত বাইরে তা দৃশ্যমান হয় না। আর এ কারণেই পুরুষদের ভালো লাগে আমার। তাই বিচ্ছেদের ক্ষেত্রে তাদের ওপর দোষ চাপানোর পক্ষে নই আমি, বলেন শিলা।
সূত্র : ম্যানস ওয়ার্ল্ড

 


মন্তব্য