kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


৮৭ বছরের পুরনো বইয়ে অন্য কলম্বাস

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১১ অক্টোবর, ২০১৬ ২০:৩৩



৮৭ বছরের পুরনো বইয়ে অন্য কলম্বাস

আমেরিকাস আবিষ্কারের জন্য ক্রিস্টোফার কলোম্বাসের জন্য যে তিনটি জাহাজ ছিল তার একটির নাম সান্তা মারিয়া। ১৪৯২ সালের ক্রিসমাসের দিনটিতে জাহাজটি রওনা দিলো আজকের হাইতি থেকে।

কলম্বাসের সেই অভিযানে, যাকে অনেক সময়ই কল্পিত বলে মনে করা হয়, ওই বিধ্বস্ত জাহাজের কপালে কি ঘটেছিল তা নিয়ে নতুন করে চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে।

ক্রিশ্চিয়ান সায়েন্স মনিটর এক প্রতিবেদনে জানায়, এ বছর আমেরিকার অনেক শহরে 'ইন্ডিজেনাস পিপলস ডে'র পরিবর্তে 'কলম্বাস ডে' পালন করা হচ্ছে। আদি আমেরিকানদের যাবতীয় সফলতা ও অর্জনকে তুলে ধরতেই এ কাজটি করা হচ্ছে। তা ছাড়া আমেরিকাসের করোনাইজেশন এবং আবিষ্কারকের বিখ্যাত হয়ে ওঠার কারণও গণ্য করা যেতে পারে। কলম্বাস ডে নামের এক নিবন্ধে বার্তোলম ডি লাস কেসাসের উদ্ধৃতি দিয়ে নরম্যান সলোমন বলেন, হত্যা, ত্রাস সৃষ্টি, জ্বালাও-পোড়াও আর অত্যাচার বেড়ে গেলো কলম্বাসের আগমনের পর থেকে।

যুগ যুগ ধরে আমেরিকার স্কুলের শিক্ষার্থীদের নানা ভুল শিক্ষা দেওয়া হয়। কলম্বাস প্রমাণ করেছিলেন পৃথিবী গোল, তার তিনটি জাহাজের ভুল নাম এবং তার ভ্রমণ শুরুর দিন তারিখ ইত্যাদি নিয়ে বহু ভুল তথ্য প্রচার পায়।

উইলিয়াম বলিথোর ১৯২৯ সালে 'টুয়েলভ এগেইনস্ট দ্য গডস' বইটি কথ ভুলে গেছে মানুষ। কলম্বাসসহ বেশ কয়েক ডজন নারী-পুরুষকে বলিথো গতানুগতিকভাবেই তুলে এনেছেন।

কলম্বাসকে নিয়ে বিংশ শতকের সাংবাদিকতা কিভাবে বয়ান দিয়েছে তা বেশ আকর্ষণীয় বিষয় হতে পারে। এই আবিষ্কারককে ঘিরে যেসব জনপ্রিয় গল্প প্রচলিত রয়েছে তাকে কেন্দ্র করে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়াই উঠে আসার কথা। তবে বলিথো আরো জটিল ও সূক্ষ্ম হিসাবে ইতিহাস তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন। তার কাছে কলম্বাস ছিলেন এক 'আবেগপূর্ণ মিথ্যাবাদী'। তার ভ্রমণের পর থেকেই পৃথিবীটা সমান এবং সমুদ্রপথ দানবে পূর্ণ বলে বিশ্বাস প্রচলিত হয়। অথচ তারও এক যুগ আগে পোপ পিয়াস দ্বিতীয় দাবি করেছিলেন যে, দৃশ্যগত দিক থেকে সবাই মোটামুটি একমত যে পৃথিবীটা গোল।

বলিথোর অভিযোগ, কলম্বাসকে তার সময়ের 'আদর্শ কাপ্তান, মহান আবিষ্কারক যিনি বিজ্ঞান, কল্পনাকে ছাড়িয়ে একা দাঁড়িয়ে রয়েছেন' ইত্যাদি উপমায় খুব বেশি ভূষিত করা হয়েছে। সোনা ও সম্মানের মোহে আসক্ত এক মানুষ যিনি আমেরিকাস আবিষ্কারের কৃতিত্ব চুরি করেছিলেন। আমেরিকা আবিষ্কার বলতেই কলম্বাসের নামে সেঁটে থাকার তত্ত্বে রাজি নন বলিথো। বলেন, আমেরিকা আবিষ্কার করেছিলেন এক কবি। তার কৃতিত্ব অন্য কারো কপালে জোটার বিষয়টি ভাগ্য নির্ধারণ করবে না।

আমেরিকার আদিবাসীদের বিষয়ে গল্প ছড়ায় যে, তারা ছিল বর্বর। কিন্তু বলিথোর মতে তারা ছিল শান্ত ও ভালো প্রকৃতির যাদের সঙ্গে সহজেই মেশা যায়। বলিতো এও বলেন, অনেক সময়ই আমেরিকার আদিবাসীদের ওপর কলম্বাসের হত্যাযজ্ঞের কারণ ছিল এমন যে, এ ধরনের অভিযান সুবিচার আর দয়াশীলতা দিয়ে সম্পন্ন হয় না।

তবুও অভিযাত্রী হিসাবে কলম্বাসের বীরত্বকে গ্রহণ করে নিতে চান বলিথো। অন্তত আকর্ষণীয় ও রঙিন এক অ্যান্টি-হিরো হিসাবে কলম্বাস এক বিখ্যাত  চরিত্র।

তবে ১৯২৯ সালে যখন বইটি বের করেন তখন বলিতো চিন্তা করেননি যে, ঠিক হোক বা নাই হোক, মানুষ একটি ভুল ধারণার প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকতে চায় কি না। সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার

 


মন্তব্য