kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


স্যাটেলাইট ছবিতে ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্রে ‘শয়তানের মুখ’!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৭ অক্টোবর, ২০১৬ ২১:৫৫



স্যাটেলাইট ছবিতে ঘূর্ণিঝড়ের কেন্দ্রে ‘শয়তানের মুখ’!

ঘূর্ণিঝড় ম্যথিউ আঘাত হানছে আমেরিকার পূর্ব উপকূলে। সর্ব্বোচ্চ সতর্কতা জারি করা হয়েছে সেখানে।

বেশ কিছু মানুষ ঝড়ের দাপটে প্রাণ হারিয়েছেন। তবে সামগ্রিক প্রাণহানি এবং ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এই মুহূর্তে নির্ণয় করা সম্ভব না।  এমন অবসরেই স্যাটেলাইটের এক আজব ছবি ভাইরাল হয়ে পড়েছে গণমাধ্যমে-সোশ্যাল মিডিয়ায়।

নাসা কর্তৃক গৃহীত এই উপগ্রহ-চিত্রে দেখা যাচ্ছে, ঝড়ের কেন্দ্রে এক মড়ার খুলির মতো মুখ। এই ইনফ্রারেড ইমেজ নাসা ব্যবহার করে ৪ অক্টোবর, তার টুইটার অ্যাকাউন্টে ঝড়ের বার্তা জানাতেই। এর পরে রিটুইট হতে থাকে এই ছবি। ‘ক্রিপি’ ছাপ্পা ঋদ্ধ হতে হতে গোটা দুনিয়াই রীতিমতো প্যারানর্মাল ভাবগ্রস্ত হয়ে পড়ে। প্যারানর্মালবাদীরা তাবড় তাবড় পোস্ট লিখে ফেলতে শুরু করেন ব্লগে-ফেসবুকে। তাঁদের মতে, এই চিহ্ন খুবই অশুভ। অসংখ্য প্রাণহানি, সম্পত্তিনাশ, বিপর্যয়ের ইঙ্গিত এই চিহ্নে নিহিত রয়েছে। অনেকে আবার এই চিহ্নের পিছনে ভিনগ্রহবাসীদের কেরামতিও দেখে ফেলেছেন। অনেকে স্পষ্ট বলেই ফেলেছেন, এই চিহ্ন স্বয়ং শয়তানের। ডুমস ডে বা শেষের সেদিন সমাগতপ্রায়।

এহেন পরিস্থিতিতে নাসা-র আর্থ সায়েন্স অফিস থেকে আবহবিজ্ঞানী পল মেয়র জানিয়েছেন, না, কোনো রকম ‘শয়তানি কারবার’ এর পিছনে নেই। হ্যারিকেনের ‘আই’-কে বোঝাতে বিভিন্ন রকমের রং ব্যবহার করা হয়েছে এই ছবিতে। আর তাতেই ঘটেছে বিপর্যয়। কঙ্কালের দাঁত হিসেবে যা দেখা যাচ্ছে, তা আসলে অতিশীতল মেঘ।

শয়তানের কারবার সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া গেলেও ঝড়ের দাপট সম্পর্কে যায় নি, বলাই বাহুল্য।


মন্তব্য