kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


স্বাস্থ্যকর কার্বোহাইড্রেটের উৎস সাগুদানা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৬ অক্টোবর, ২০১৬ ১৮:২৮



স্বাস্থ্যকর কার্বোহাইড্রেটের উৎস সাগুদানা

ছোট ছোট সাদা দানাগুলো সংগৃহিত হয় টাপিওকা শস্যের মূল থেকে। বহু দেশের অতি পরিচিত ও প্রিয় খাদ্য শাগুদানা।

ভারতে নবরাত্রির আয়োজনে এর প্রচুর ব্যবহার ঘটে। অনেক ধরনের খাবার বানাতে সাগুদানা মূল উপকরণ হয়ে ওঠে। ভারতে সাগুদানার অনেক ধরনের রেসিপি রয়েছে। এগুলো শুধু মজাই নয়, পুষ্টিগুণেও দারুণ।

টাপিওকা বা কাসাভা দক্ষিণ আমেরিকার খুবই পরিচিত গাছ। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে দেয় পর্তুগিজরা। অনেকে সাবুদানা নামেও পরিচিত। সাগু মূলত কার্বোহাইড্রেটের দারুণ উৎস। স্টার্চ বা দুধের ব্যবহারে মূল থেকে সাগুদানা তৈরি করা হয়। এগুলো ক্ষুদ্র গোলাকার দানায় পরিণত হয়। অনেকটা মুক্তোর মতো। এই মুক্তোদানাগুলো ভেজে পরে আবারো রোদে শুকানো হয়। আধুনিককালে অনেক ধরনের যন্ত্রের মাধ্যমে সাগুদানা প্রক্রিয়াজাত হয়। একে নন-সিরিয়াল খাবারের উত্তম উৎস বলে মনে করা হয়। হিন্দুরা উপোস থাকার পর সাগুদানা নানা ধরনের খাবার খায়। এটি উন্নত মানের কার্ব, ফাইবার ও ক্যালসিয়ামের উৎস। প্রতিদিনের খাবারে একে যোগ করা যায়। রান্নার সময় সাগু বেশ আঠালো হয়ে ওঠে। এ কারণেই সাধারণত দুধ দিয়ে রান্না করা হয়। মজাদার ডেজার্ট হিসাবে দারুণ জনপ্রিয় ভারতে।

এখানে সাগুদানা রান্নার  উপায় সম্পর্কে জানানো হলো। রান্নার আগে একে পানিতে কয়েক ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে। বাজারে বিভিন্ন ধরনের সাগু পাওয়া যায়। আসল মজা পেতে হলে কয়েকবার রান্না করে হাত পাকিয়ে নিতে হবে।

ব্যাঙ্গালোররে একজন হোম শেফ বন্দনা জানান, আমি সাগু দইয়ের মধ্যে ২-৩ ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখি। এতে সাগু আঠালো হয় না। ফলাফল এটি হয় মুড়মুড়ে।

আরেক রন্ধনশিল্পী মিসে দেশপান্ডে। তিনি বলেন, সাগুদানা এমন এক জিনিস যা আপনার নজর কাড়বেই। স্বচ্ছ না হওয়া পর্যন্ত এদের তেল বা পানি বা দইয়ে ভিজিয়ে রাখতে হবে।

এখানে সাগুদানার কিছু খাবারের কথা জেনে নিন।

১. সাগুদানা ভাদা : আলু ও সাগুদানা মেলানো হয় মসলার সঙ্গে। এই মিশ্রণ পেটিসের মধ্যে দিয়ে ভাজা হয়। ধনে বা পুদিনা পাতার চাটনি দিয়ে পরিবেশন করা হয়।

২. সাগুদানা খিচুড়ি : দারুণ জনপ্রিয় ভারতে। খিচুড়ি যেখাবে রান্না করেন সেভাবেই করতে হবে। তবে চালের পরিবর্তনে সাগুদানা দেওয়া হয়। এতে হলুদ ও অন্যান্য মসলা দেওয়া হয়। নবরাত্রি উদযাপনে এটি জনপ্রিয় খাবার।

৩. সাগুদানা ক্ষীর : এটাও বেশ মজার খাবার। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পরিবেশন করা হয়। দেওয়া হয় এলাচ ও জাফরান। সূত্র : এনডিটিভি

 


মন্তব্য