kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


গাঁজার গন্ধ ছড়ানোয় বাসে ওঠা নিষিদ্ধ ছয়মাস!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৫ অক্টোবর, ২০১৬ ১৩:৪৯



গাঁজার গন্ধ ছড়ানোয় বাসে ওঠা নিষিদ্ধ ছয়মাস!

ওয়াশিংটনের ব্রেমার্টোনের স্থানীয় পরিবহন কম্পানি ছয় মাসের জন্য এক গাঁজা আসক্তর বাসে ওঠা নিষিদ্ধ করেছে। নিষেধাজ্ঞায় বলা হয়, তিনি যখনই বাসে ওঠেন তখনই দুর্গন্ধ ছড়ান।


ম্যাথিউ লিটল নামের ওই ব্যক্তিও স্বীকার করেছেন, “আমার নিজেরও প্রায়ই এই অনুভূতি হত যে, আমার শরীর থেকে গাঁজার গন্ধ বের হচ্ছে, যেনবা আমি এই মাত্র গাঁজা খেয়ে এসেছি। সম্ভবত আমি সত্যি সত্যিই হয়তো কিছুক্ষণ আগে গাঁজা খেয়ে এসেছি। ” সিয়াটলের কির্কো টিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি একথা বলেন।
লিটল নিজে অবশ্য বিশ্বাস করেন না তার শরীর থেকে দুর্গন্ধ ছড়ায়। তিনি নিজের ব্যক্তিগত গন্ধকে “গাঞ্জা বা কার্ল লেগারফেল্ড” নামে আখ্যায়িত করেছেন।
তবে কিটসাপ ট্রানজিট নামের স্থানীয় পরিবহন কম্পানিটি অবশ্য অভিযোগ করেছে, লিটলের গায়ের গন্ধ “অযৌক্তিকভাবে অন্যদের বিরক্ত করছে”। আর কম্পানিটির আচরণবিধিতেও যেসব যাত্রীদের শরীর থেকে বিড়ালের পেশাব, মানুষের মল বা অন্য কোনো বাজে গন্ধ আসবে তাদেরকে নিষিদ্ধ করার নিয়ম রয়েছে।
পরিবহন কম্পানিটির কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মাথিউ লিটলের শরীর থেকে গাঁজার উগ্র গন্ধ ছড়াচ্ছিল। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, ওয়াশিংটনে মারিজুয়ানা বা গাঁজা সেবন আইনত নিষিদ্ধ নয়। আর কিটসাপ ট্রানজিটের আচরণবিধিতেও গাঁজা নিষিদ্ধ করার কথা উল্লেখ করা হয়নি।
কম্পানিটির তরফে জানানো হয়েছে, এই নিষেধাজ্ঞা গাঁজা সেবনের বিরুদ্ধে নয়। দুর্গন্ধ ছড়ানো এবং সকল যাত্রীর সম্মান রক্ষার্থে এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।
লিটলের ওপর বাসে চড়া এবং বাস স্টপে আসার নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞায় ক্ষেপেছেন লিটল। তার জিজ্ঞাসা তিনি কী করে ডাক্তারের কাছে যাবেন।
কম্পানিটি গত জুনে প্রথমবার লিটলের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ গ্রহণ করে। সেসময় তিনি চারদিন বাসে চড়ার নিয়ম ভঙ্গ করেছিলেন। এর মধ্যে ছিল একটি বাসের জরুরি বাহির হওয়ার পথ খুলে ফেলা। বাসে গাঁজা সেবন এবং ড্রাইভারের সঙ্গে চিৎকার চেঁচামেচি করা।
সেবার লিটল বাসে আর গাঁজার গন্ধ না ছড়ানোর এবং ড্রাইভারের সঙ্গে চেঁচামেচি না করার প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় কম্পানিটি তাকে নিষিদ্ধ করেনি। এরপর সেপ্টেম্বর পর্যন্ত নিজেকে শোধরানোর সুযোগ দেওয়া হয় লিটলকে। কিন্তু সম্প্রতি নিজের প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করায় তাকে এবার ছয়মাসের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে।
লিটল অবশ্য এই নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে আদালতে আপিল করেছেন। আটলান্টা ভিত্তিক নাগরিক অধিকার বিশেষজ্ঞ অাইনজীবি কেনায়া জনসন জানিয়েছেন, লিটল চাইলে কম্পানিটির বিরুদ্ধে মামলাও করতে পারবেন।
তাঁর মতে, যেখানে গাঁজা সেবন আইনগতভাবে বৈধ সেখানে গাঁজার গন্ধকে পশুমূত্র এবং মানুষের মলের সঙ্গে তুলনা করাটা অযৌক্তিক বলেই বিবেচিত হবে। ফলে নিষেধাজ্ঞাটিকে নায্য বলে প্রতিপন্ন করার জন্য কম্পানিটিকে প্রমাণ করতে হবে যে, লিটলের শরীর থেকে ছড়ানো দুর্গন্ধ অন্য যাত্রীদের ভ্রমণ উপভোগ করার ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করেছে।
এছাড়া অন্য কোনো লোক যদি গাঁজার গন্ধ ছড়ানো সত্ত্বেও বাসে চড়তে পারছেন বলে প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে ম্যাথিউ লিটল তারা বিরুদ্ধে বৈষম্য করা হচ্ছে বলেও আদালতে অভিযোগ করতে পারবেন।
সূত্র: দ্য হাফিংটন পোস্ট


মন্তব্য