kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পানির নিচের সবচেয়ে গভীর গুহা আবিষ্কার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১২:২৯



পানির নিচের সবচেয়ে গভীর গুহা আবিষ্কার

চেক প্রজাতন্ত্রের একটি অনুসন্ধানকারী দল সম্প্রতি পানির নিচে বিশ্বের সবচেয়ে গভীর গুহাটি আবিষ্কার করেছেন। পোল্যান্ডের কিংবদন্তী ডুবুরি ক্রিজিসটফ স্টারনোস্কির নেতৃত্বে চেকপ্রজাতন্ত্র ও পোল্যান্ড এর গবেষকরা যৌথভাবে এই অনুসন্ধান চালান।

এর অর্থায়ন করেছে, ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক। গত ২৭ সেপ্টেম্বর আবিষ্কৃত প্লাবিত চুনাপাথরের গুহাটি ৪০৪ মিটার গভীর (১,৩২৫ ফুট)।

এর আগের গভীরতম গুহাটি হলো ইতালির পোজ্জো ডেল মেরো। ওই গুহার গভীরতা ৩৯২ মিটার (১,২৮৬ ফুট)। নব আবিষ্কৃত গুহাটি ইতালির ওই গুহা থেকে ১২ মিটার (৩৯ ফুট) বেশি গভীর।

স্টারনোস্কি ১৯৯৯ সালে প্রথম হিরানিকা প্রপসেট নামে চেকপ্রজাতন্ত্রের একটি গুহা আবিষ্কার অভিযানে নেতৃত্ব দেন। তিনি জানান, চুনাপাথরের গঠন একটু অস্বাভাবিক পদ্ধতিতেই হয়ে থাকে। তার মানে এই পাথরের গুহা অনেকদূর পর্যন্ত গভীর হতে পারে। এই ধরনের গুহা থেকে আগ্নেয়গিরর মতো কার্বন ডাই অক্সাইড মিশ্রিত গরম পানির বুদবুদ ওঠে। এর ফলে গুহার তলা থেকে পাথর ক্ষয়ে ওপরে উঠে আসে। অনুসন্ধানকারীরা জানান গুহাটির পানির সংস্পর্শে এসে তাদের ত্বকে চুলকানি হয়েছে।

গত দুই বছর ধরে স্টারনোস্কি পানির নিচে বারবার ডুব দিয়ে অনুসন্ধান চালিয়েছেন। যা থেকে আরো কিছু সূত্র পাওয়া যায়। ২০১৪ সালে তিনি ২০০ মিটার (৬৫৬ ফুট) গভীরে পৌঁছান। আর সেখানেই গুহাটির শেষ সীমা অবস্থিত বলে ভেবেছিলেন স্টারনোস্কি। কিন্তু এর পরিবর্তে তিনি অত্যন্ত সংকীর্ণ আরেকটি প্রবেশ পথের দেখা পান। এর নাম “স্কুইজ প্যাসেজ”। ওই প্যাসেজ আরেকটি উল্লম্ব টানেলের দিকে নিয়ে যায় তাকে। টানেলটি পীচের মতো কালো এবং এবড়ো-থেবড়ো চুনাপাথরে ঘেরা। এরপর তিনি টানেলটি বেয়ে আরো নিচের দিকে নামতে থাকেন এবং একসময় গুহাটির তলায় গিয়ে পৌঁছান।
সূত্র: ন্যাশনাল জিওগ্রাফিক


মন্তব্য