kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ফের গোপনাঙ্গে বিষাক্ত মাকড়সায় কামড়ে দিল সেই অস্ট্রেলিয়কে

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১১:১৭



ফের গোপনাঙ্গে বিষাক্ত মাকড়সায় কামড়ে দিল সেই অস্ট্রেলিয়কে

২১ বছর বয়সী সেই অস্ট্রেলিয় ব্যক্তির গোপনাঙ্গে ফের একটি বিষাক্ত মাকড়সায় কামড়ে দিয়েছে। মঙ্গলবার সিডনির একটি নির্মাণাধীন ভবনে ওই ব্যক্তি একটি ভ্রাম্যমাণ টয়লেট ব্যবহার করার সময় তার গোপনাঙ্গে একটি বিষাক্ত মাকড়াসায় কামড়ে দেয়।

ফলে এই নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো তার গোপনাঙ্গে মাকড়সায় কামড়ে দিল। এর পাঁচ মাস আগে তিনি প্রথমবার গোপনাঙ্গে মাকড়সার কামড় খেয়েছেন।
জর্ডান নামের ওই ব্যক্তি বলেন, আগেরবারের মাকড়সাটি যেখানে কামড় দিয়েছিল এবারের মাকড়াসাটিও ঠিক সেখানেই কামড়ে দিয়েছে।
বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, “এই মুহূর্তে দেশের মধ্যে আমিই সবচেয়ে দুর্ভাগা ব্যক্তি। ”
“আমি টয়লেটে বসে প্রাকৃতিক কাজ সারছিলাম। এমন সময় হঠাৎ আগেরবার যেমন করে হুলবিদ্ধ হওয়ার অনুভূতি হয়েছিল তেমনই একটি অনুভূতি হলো। ”
“আমি বিশ্বাসই করতে পারছিলামনা ফের একই কাণ্ড ঘটেছে। এরপর আমি নিচে তাকিয়ে দেখতে পেলাম কয়েকটি ছোট ছোট পা আমার গোপনাঙ্গকে আঁকড়ে ধরে আছে। ”
তিনি জানান, প্রথমবার যখন তাকে মাকড়সায় কামড় দিয়েছিল তখনই তিনি ভ্রাম্যমাণ টয়লেট ব্যবহার নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছিলেন।
তিনি বলেন, “প্রথমবারের ওই ঘটনার পর আমি সত্যিকার অর্থেই আর পুনরায় কোনো ভ্রাম্যমাণ টয়লেট ব্যবহার করতে চাইনি। ”
“এদিন অবশ্য টয়লেটগুলো পরিষ্কার করা হয়েছিল। আর আমি ভেবেছিলাম এবার হয়তো আর আগের মতো কিছু ঘটবে না। দুটি সিটের নিচে কিছু আছে কিনা তা দেখেই একটিতে বসে আমি আমার কাজ সারছিলাম। এর পরে কী ঘটেছে তা আপনারা ইতিমধ্যেই জেনেছেন। কিছুক্ষণ পরই আমি ব্যথায় কুঁকড়ে উঠি। ”
এরপর তার বন্ধুরা তাকে হাসপাতালে নিয়ে যান। চিকিৎসা শেষে হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর জর্ডান জানান, তিনি জীবনে আর কখনো ভ্রাম্যমাণ টয়লেট ব্যবহার করবেন না।
এবার তাকে কোন জাতের মাকড়সায় কামড় দিয়েছে তা নিশ্চিত করে বলতে পারেন নি জর্ডান।
উল্লেখ্য, অস্ট্রেলিয়ায় সচরাচর যে বিষাক্ত মাকড়সাটির দেখা মেলে সেটির নাম রেডব্যাক স্পাইডার। এটি ব্ল্যাক উইডো স্পাইডার নামের একটি প্রজাতির বিষাক্ত মাকড়সার সঙ্গে ঘণিষ্ঠভাবে সম্পর্কযুক্ত। এই মাকড়সাটির তলপেটে দীর্ঘ লাল ডোঁরাকাটা আছে।
এই মাকড়সার কামড়ে মানবদেহে তীব্র ব্যাথা, ঘাম এবং বমির অনুভূতি সৃষ্টি হয়। রেডব্যাক মাকড়সার কামড়ে আতীতে অনেক মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু ১৯৫৬ সালে অ্যান্টিভেনম আবিষ্কারের পর থেকে এই মাকড়সার কামড়ে এখন আর কেউ মারা যান না।
সূত্র: বিবিসি


মন্তব্য