kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


লটারি জেতার পর তারা যা করেছিলেন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৪:১৩



লটারি জেতার পর তারা যা করেছিলেন

লটারিতে বিপুল অর্থ জিতে গেলে আপনি কি করবেন? বহু মানুষই ভাবেন ইশ লটারিতে যদি বিপুল অর্থ পাওয়া যেত তাহলে কতই না ভালো হত! কিন্তু বাস্তবে বহু লটারি বিজয়ীর মাঝে দেখা গেছে, বিপুল অর্থ জেতার পরেও তাদের অবস্থার পরিবর্তন হয়নি। কারণ নানাভাবে এ অর্থ খরচ হয়ে যায় কিংব নানাভাবে হারাতে হয়।

আর সে অর্থ তাই তাদের ভাগ্য পরিবর্তন করতে পারে না। তবে এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম কয়েকজন লটারি বিজয়ী। তারা কিভাবে অর্থ ব্যবহার করেছেন, সে বিষয়েই এ লেখা। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ডেইলি মেইল।

কিছুদিন আগে যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টারে তিনজন লটারি বিজয়ী ৩৩ মিলিয়ন পাউন্ড অর্থ পান। তারা হলেন ব্রায়ান ক্যাশওয়েল, ডিন হার্ডম্যান ও অ্যানিট ডাউসন।

লটারি বিজয়ীদের মাঝে ব্রায়ান ক্যাশওয়েলের বয়স ৮১ বছর। তিনি এর আগেও লটারিতে ২০০৯ সালে ২৫ মিলিয়ন পাউন্ড পান। আর এ কারণে তিনি যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে ভাগ্যবান লটারি বিজয়ী হিসেবে নিজেকে প্রমাণিত করেছেন।

অবশ্য ব্রায়ানের আর্থিক অবস্থা আগে থেকেই ভালো। এর আগে তিনি দুইবার প্রাইভেট জেট ভাড়া করে তার সম্পূর্ণ পরিবারসহ ছুটি কাটাতে গিয়েছিলেন।

অবসরপ্রাপ্ত ইঞ্জিনিয়ার ব্রায়ান জানান, তিনি লটারি জেতা এ অর্থের অর্ধেক তার পরিবার ও জনকল্যাণে দান করে দেবেন। আর নিজের জন্য নয় বরং অপরের উপকার হয়, এমন কাজেই তিনি অর্থগুলো ব্যয় করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

তিনি জানান, লটারি জেতার পর তার ও তার পরিবারের সদস্যদের সাক্ষাৎ পাওয়ার জন্য সাংবাদিকরা ভিড় করছেন। তার বাড়ির বাইরে ফটোগ্রাফাররা ছবি তোলার জন্য অপেক্ষা করছেন। আর এতে তিনি খুবই বিরক্ত হচ্ছেন। তার স্ত্রীও এজন্য খুবই বিরক্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন। তবে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হওয়ার পর তারা এ লটারি জেতার অর্থ ব্যবহারের পরিকল্পনার কথা জানান সাংবাদিকদের।
৪১ বছর বয়সী অ্যানিট ডাউসন গত বছরের ইউরো র‌্যাফল থেকে এক মিলিয়ন পাউন্ডের লটারি বিজয়ী হন। সে সময় তিনি বুলগেরিয়ায় ছুটি কাটাতে গিয়েছিলেন। তবে লটারিতে বিজয়ী হওয়ার সংবাদেও তিনি হিতাহিত জ্ঞান হারাননি।

তিনি জানান, ৩০ মিলিয়ন পাউন্ডে তিনি একটি সুইট কিনেছেন। আর তাতে পরিবারের সব সদস্যদের নিয়ে দারুণ সময় কাটাচ্ছেন।

লটারিতে পাওয়া অর্থ থেকে এক লাখ পাউন্ড দান করে দেওয়ার অঙ্গিকার করেছেন তিনি।

অ্যানিট তার লটারিতে পাওয়া অধিকাংশ অর্থই ব্যয় করেছেন নতুন একটি বাড়ি কিনতে। তিনি জানান, টাকা কাউকে সুখী করতে পারে না। তবে এটি জীবনকে কিছুটা সহজ করতে পারে।

৪২ বছর বয়সী ডিন হার্ডম্যান লটারিতে ৬.৭৫ মিলিয়ন পাউন্ড জয় করেন ২০০৬ সালে। আর এ অর্থ দিয়ে তিনি একটি ফোর্ড গ্যালাক্সি ক্রয় করেন। এরপর থেকে তিনি অনেকাংশে পাল্টে যান। নিজের অর্থ ব্যয় করার ব্যাপারে তিনি সতর্কতা অবলম্বন করেন এবং আগের তুলনায় সৃজনশীল ও সতর্ক হয়ে ওঠেন।

তিনি একটি রেসের গোড়া কেনেন, যার নাম স্ট্যানলি রিগবি। এ ছাড়া তিনি নিজের স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে একটি নতুন বাড়িতেও ওঠেন।

তিনি ও তার স্ত্রী একত্রে জনকল্যাণে বহু অর্থ দান করেন। এ ছাড়া তারা ক্রাউন ইন নামে একটি হোটেল পরিচালনা করেন। এ ছাড়া বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী কাজেও তিনি অংশগ্রহণ করেন।

এ বিষয়ে ডিন বলেন, আমরা যা চাই তা করতে পারি। আমরা আমাদের ছুটির দিন পছন্দ করি। আমি আমার রেসের ঘোড়া ভালোবাসি। আর এটি আমার জন্য একটি স্বপ্নের মতো। এ ছাড়া আমি যখন পরিবারের কোনো কাছের সদস্যকে সহায়তা করতে চাই- তাও পারি।

 


মন্তব্য