kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দক্ষিণ মেরু অঞ্চলে গঠিত হচ্ছে বিশাল ভূখণ্ড!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৬:০২



দক্ষিণ মেরু অঞ্চলে গঠিত হচ্ছে বিশাল ভূখণ্ড!

সাগরের তলে দীর্ঘদিন ধরে ক্ষুদ্র শৈবাল ও নানা প্রাণীর দেহ থেকে গড়ে ওঠে ভূখণ্ড। ইংল্যান্ডের দক্ষিণ-পূর্ব দিকের উপকূলভাগও এভাবেই গড়ে উঠেছে।

একইভাবে দক্ষিণ মেরুতেও গড়ে উঠছে ভূখণ্ড। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ফক্স নিউজ।
ইংল্যান্ডের দক্ষিণ-পূর্ব উপকূলের ভূখণ্ড গড়ে উঠতে প্রায় ১০০ মিলিয়ন বছর লেগেছে। তবে খুব সহজেই এ ধরনের ভূমি গড়ে ওঠে না, এজন্য সাগরের একটি বিশেষ অবস্থার প্রয়োজন হয় বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।
\"\"
দক্ষিণ মেরুর নিকটবর্তী এলাকায় একই ধরনের একটি ভূখণ্ড গড়ে উঠছে। এটি তৈরি হচ্ছে মূলত একধরনের সামুদ্রিক শৈবালের ক্যালসিয়ামের খোলসের কারণে। বহু বছর ধরে সামুদ্রিক শৈবালের ক্যালসাইট থেকে এ শক্ত আবরণ তৈরি হয় সাগরের তলে।
সম্প্রতি বাইগলো ল্যাবরেটরি ফর ওসেন সায়েন্সেস ইন ইস্ট বুথবের সমুদ্র বিষয়ক গবেষক উইলিয়াম বালচ বলেন, ‘আমাদের সাউদার্ন ওসেনের বিষয়ে আগে সেভাবে ধারণা ছিল না। কিন্তু এখন তথ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে দেখা যাচ্ছে সাগরটির তলদেশে ক্যালসাইট গঠিত হচ্ছে। ’
ইংলিশ চ্যানেলের পাশ্ববর্তী এলাকায় ও ডোভারে যে হোয়াইট ক্লিফ গঠিত হয়েছে তা তৈরি হয়েছে বহু বছর ধরে কোকোলিথোপোহোরেস নামে একধরনের শৈবালের কারণে। মূলত এ শৈবালগুলো যখন মারা যায় তখন তাদের দেহাবশেষ সেখানেই থেকে যায়। আর বহু মিলিয়ন বছর ধরে এ দেহাবশেষ জমেই গঠিত হয় ভূখণ্ড।
সম্প্রতি একদল গবেষক যুক্তরাজ্যের দক্ষিণ-পূর্ব দিকের উপকূলভাগে গড়ে ওঠা ভূখণ্ড সম্পর্কে অনুসন্ধান করেন। এতে উঠে এসেছে ১০০ মিলিয়ন বছরে ধীরে ধীরে গড়ে ওঠা এ ভূখণ্ডের বৈজ্ঞানিক ইতিহাস। গবেষকরা এখনও এ বিষয়ে অনুসন্ধান করছেন। তারা জানার চেষ্টা করছেন, ঠিক কী ধরনের সামুদ্রিক আবহাওয়ায় কোকোলিথোপোহোরেস নামে এধরনের শৈবাল বৃদ্ধি পায়। অন্য সব সাগরে এ ধরনের শৈবাল কেন বৃদ্ধি পায় না, সে বিষয়টিও গবেষণায় জানার চেষ্টা চলছে।
গবেষকরা যতদূর জানতে পেরেছেন সামুদ্রিক স্রোত, নির্দিষ্ট কিছু পুষ্টি ও খনিজ উপাদানের কারণে এ অঞ্চলে কোকোলিথোপোহোরেস বৃদ্ধি পেয়েছে। আর এ বিষয়ে গবেষণার ফলাফল তারা প্রকাশ করেছেন গ্লোবাল বায়োজিওকেমিক্যাল সাইকলস জার্নালে।


মন্তব্য