kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অামস্টারডামে স্বচালিত নৌযানের পরীক্ষা

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৬:৩৩



অামস্টারডামে স্বচালিত নৌযানের পরীক্ষা

রেড লাইট ডিস্ট্রিক্ট, মারিজুয়ানা বিতরণের কফি শপ এবং স্বতন্ত্র খাল যোগাযোগ পদ্ধতির জন্য বিখ্যাত শহর আমস্টারডাম শহরটি এর বিস্তৃত পানি পথের সুবিধা গ্রহণ করে স্বচালিত নৌযানের পরীক্ষা চালাবে।
এমআইটির সহযোগিতায় আমস্টারডাম ইনস্টিটিউট ফর অ্যাডভান্সড মেট্রোপলিটন সলিউশনস (এএমএস ইনস্টিটিউট) মহানগরী এলাকায় পানিতে ভাসমান স্বচালিত যান বা রোবট নৌকা নিয়ে বিশ্বের প্রথম বড় গবেষণা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।

পাঁচবছরব্যাপী ওই প্রকল্পে ২৭.৯ মিলিয়ন ডলার ব্যয় করা হবে। এএমএস ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞান বিষয়ক পরিচালক, অারজান ভ্যান টিম্মেরেন বলেন, রোবট প্রযুক্তি ব্যাপক সম্ভাবনার দ্বার উম্মুক্ত করেছে।
ওই গবেষক দল পানির নিচের এমন রোবট নিয়েও গবেষণা করতে সক্ষম যা কোনো রোগকে শুরুতেই শনাক্ত পারবে। বা রোবট ব্যবহার করে স্থানীয় খালগুলো থেকে ভাসমান বর্জ্য অপসারণ করতে পারবে। অথবা প্রতি বছর যে ১২ হাজার বাইসাইকেল পানিতে তলিয়ে যায় সেগুলো উদ্ধারে পুনরুদ্ধার করতে পারবে।
শহরটির ভাইস মেয়র কাজসা ওলোনগ্রেন বলেন, “আমস্টারডামের জন্য এটি একটি চমৎকার সুযোগ। বিশ্বের সবচেয়ে নামকরা বিজ্ঞানীরা পানিপথ বেষ্টিত একটি শহরের জন্য স্বচালিত নৌকার মতো সমাধান বের করার চেষ্টা করছেন যা নজিরবিহীন একটি ব্যাপার। আর যে শহরে পানি এবং প্রযুক্তি যুগযুগ ধরে একাকার হয়ে আছে সে শহরের জন্য এর চেয়ে বেশি উপযোগী প্রচেষ্টা আর কিছু্ই হতে পারে না। ”
প্রাথমিকভাবে আমস্টারডামে পরিচালিত হলেও এই গবেষণা কর্মসূচিটি বিশ্বব্যাপী শহর এলাকাগুলোর জন্যও অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে কাজ করার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। এরপর সম্ভবত ইতালির ভ্যানিসেও একই পরীক্ষা চালানো হবে।
শুধু মানুষ ও পণ্য পরিবহনের জন্য পানিতে স্বচালিত ভাসমান যানই নয় বরং এমন সব ভাসমান স্থাপনাও তৈরি করা সম্ভব যেগুলো চাহিদানুযায়ী সেতু এবং মঞ্চের মতো অবকাঠামো হিসেবেও ব্যবহার করা যাবে। এসব অবকাঠামো কয়েক ঘন্টার মধ্যেই সমবেত করা যাবে বা আলাদা করা যাবে।
আগামী বছরের প্রথমদিকেই হয়তো আমস্টারডামের পানিতে প্রথম ভাসমান স্বচালিত যান বা রোবট যানের যাত্রা শুরু হবে।
সূত্র: ফক্স নিউজ


মন্তব্য