kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ফেসবুকে একটি কমেন্ট বাঁচাতে পারে আপনার বন্ধুকে!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৮:০৮



ফেসবুকে একটি কমেন্ট বাঁচাতে পারে আপনার বন্ধুকে!

মানসিক অস্থিরতা একটি ভয়ানক রোগ। ধীরে ধীরে গোপনে একটি মানুষকে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে নিয়ে যায়।

কিংবা ভয়ঙ্কর অপরাধী বানিয়ে তোলে। গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতি মাসে মাত্র ৬০টা কমেন্ট যে কারও জীবনে ইতিবাচক প্রভাব ফেলে। সে হিসেবে প্রিয় মানুষদের কাছ থেকে প্রাপ্ত প্রতিদিন মাত্র দুটি কমেন্টের কারণে কারও মানসিক অস্থিরতা কমে যায়।

পেনসিলভানিয়ার কার্নেগি মেলন বিশ্ববিদ্যালয়ের হিউম্যান কম্পিউটার ইন্টার‌্যাকশান ইন্সটিটিউটের অধ্যাপক রবার্ট ক্রাউট এ গবেষণাটি করেছিলেন। ক্রাউট বলেন, ফেসবুকে আপনি পছন্দের কারও সঙ্গে যখন গভীর কোনও বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করবেন তখন সেই আলোচনা আপনার মনকে ভালো করে দেবে। শুধু ফেসবুকে নয়, সামনাসামনি আলোচনা করলেও এমনটা হয়ে থাকে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সময়ের সঙ্গে সঙ্গে মেজাজ ও আচরণের পরিবর্তন বিবেচনা করে গবেষকরা এই সিদ্ধান্তে পৌঁছান। তারা দেখেছেন, সংকটপূর্ণ মুহূর্তে মানুষ ফেসবুকে তার ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে কথা বলার মাধ্যমে নিজের মধ্যে থাকা অতিরিক্ত চাপ, একাকীত্ব এবং হতাশা দূর করে। এসময় অন্যের কাছ থেকে পাওয়া যেকোনও ইতিবাচক মন্তব্য তাকে আশাবাদী করে তোলে। এ সম্পর্কে গবেষকরা বলছেন, কাউকে ভালো রাখার জন্য কিংবা আশাবাদী করে তোলার জন্য অনেক বেশি কথাবার্তা বলতে হবে ব্যাপারটা সেরকম নয়।

এমনও হতে পারে যে, মাত্র একটি কথার মাধ্যমেই কাউকে অতিরিক্ত চাপ থেকে মুক্তি দেওয়া যায়। গবেষণা থেকে যে ফল আসে তার সারমর্ম হলো, যারা মানসিকভাবে কিছুটা খারাপ অবস্থায় থাকে তারা ফেসবুকে বেশি সময় ব্যয় করে। কারণ তারা জানে এর মাধ্যমে তাদের মন ভালো হবে। এই গবেষণাটি কম্পিউটার-মেডিয়েটেড কমিউনিকেশন জার্নালে প্রকাশিত হয়। মোট ৯১টি দেশের ১ হাজার ৯১০ জন ফেসবুক ইউজারকে নিয়ে এ গবেষণাটি চালানো হয়। সেখানে প্রত্যেককে তিন মাসের জন্য পর্যবেক্ষণের আওতায় রাখে গবেষকরা।

উল্লেখ্য, এই গবেষণার ফল, এ সম্পর্কিত অন্যান্য অনেক গবেষণার ফল থেকে একেবারেই আলাদা। অন্যান্য গবেষণার ফলে দেখা যায়, ফেসবুক ব্যবহারের ফলে মানুষ অনেক বেশি একা হয়ে যায়। কেউ কেউ আবার হতাশায় ভোগে।


মন্তব্য