kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পাত্রীর পোষা কুকুর পাত্রের পছন্দ নয়; ভাঙ্গল বিয়ে!

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৫৪



পাত্রীর পোষা কুকুর পাত্রের পছন্দ নয়; ভাঙ্গল বিয়ে!

পাত্রের পছন্দ ছিল পাত্রীকে। পাত্রীও হবু বরকে অপছন্দ করেনি।

কিন্তু মাঝখানে বিপত্তি বাঁধাল কুকুর! পাত্র নারাজ পাত্রীর পোষ্যকে মেনে নিতে। আর যে পাত্র তার পোষ্য মেনে নেবে না তার সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে তীব্র আপত্তি পাত্রীর। ফলাফল বিয়েটা ভেঙে গেল।

বেঙ্গালুরুর করিশমা ওয়ালিয়ার নাম এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় বহুল আলোচিত। কেননা বিয়েটা ভেঙেছেন তিনিই। জীবনে সঙ্গী বা সঙ্গিনী খুঁজে নেওয়ার সময় সকলেই ভাল করে বুঝে নিতে চান। দু’টো জীবন এক হওয়ার আগে একে অপরের ভাল-লাগা, মন্দ-লাগা খতিয়ে দেখে নিতে চান। কেননা দাম্পত্য মানেই অনেকখানি কম্প্রোমাইজ, ব্যক্তিগত ইচ্ছে-অনিচ্ছে কাটছাঁট করে দু’জনে মিলে এক পথে সামিল হওয়া। কিন্তু সেখানে যে একটি সারমেয় কাঁটা হয়ে দাঁড়াবে কে জানত!

সম্প্রতি হবু বরের সঙ্গে তার কথোপকথনের একটি স্ক্রিনশট ছড়িয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। তাতে দেখা যাচ্ছে, বিয়ে তার ঠিক হয়েই গিয়েছিল প্রায়। পাত্রের শুধু পছন্দ ছিল না হবু স্ত্রীর পোষ্যপ্রেম। কুকুরের সঙ্গে বিছানা ভাগাভাগি করা ঘোর আপত্তি ছিল তার। এছাড়া কুকুর নিয়ে পাত্রের মায়েরও কিছু সমস্যা ছিল। ফলত বিয়েটা করতে হলে পোষ্যকে ছাড়তে হত করিশমাকে। যে মানুষ তার পোষ্যকে ভালবাসে না, তার সঙ্গে সাত পাকে বাঁধা পড়তে আবার ঘোর আপত্তি করিশমার। ফলে বিয়েটা ভাঙতে দ্বিধা করেননি। এমনকী সিদ্ধান্ত নিতে বিশেষ সময়ও নেননি,  সোশ্যাল মিডিয়ার চ্যাটেই নিজের মতামত জানিয়ে দেন তিনি।

সোশ্যাল মিডিয়ায় এই পোস্ট ছড়িয়ে পড়ার পর বহু লোক করিশমার পক্ষেই মুখ খুলেছেন। একটা কুকুরকে ভাল না বাসার পেছনে কী কারণ থাকতে পারে এটাই অনেকের কাছে বিস্ময়। তবে করিশমার সিদ্ধান্ত নেওয়ার সাহসের প্রশংসা করেছেন বেশীরভাগ মানুষই। কেননা বিয়ের মতো একটি প্রতিষ্ঠানকে অগ্রাহ্য করা সহজ নয়, তাও আবার পোষ্যের কারণে বিয়ে ভেঙে দেওয়া প্রায় নজিরবিহীন। তবে বিবাহ পরবর্তী ঝামেলা এড়াতে করিশমা এখন যে দৃঢ় সিদ্ধান্ত নিতে পেরেছেন, তাতেই অজস্র সাধুবাদ জমা পড়ছে সোশ্যাল মিডিয়ায়।


মন্তব্য