kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অ্যালবার্টের ক্যামেরায় নারীর চরম পুলকের মুহূর্ত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২০:১৪



অ্যালবার্টের ক্যামেরায় নারীর চরম পুলকের মুহূর্ত

শরীরী সুখ মানেই নগ্নতা নয়।  যৌনসুখ অনুভবের চরমতম অবস্থাকেই ‘অর্গ্যাজম’ বলে আখ্যায়িত রাখে অভিধান।

কিন্তু দার্শনিকের কাছে এই শব্দের মানে যা, মেডিক্যাল শাস্ত্র আবার তাতে বিশ্বাসী নয়। কিন্তু এই দুই দিগন্তই স্বীকার করে অর্গ্যাজম বা চরমতম রতিসুখই মানবজীবনে পরমতম সুখের ক্ষণ। এমনকী, আধ্যাত্মও এই পরম সুখবিন্দুকে স্বীকৃতি দেয়।

রতিসুখেরও স্ত্রী-পুরুষ ভেদ রয়েছে, রয়েছে তার তারতম্যও। নারীর রতিসুখের স্বরূপ দীর্ঘকাল অজ্ঞাত ছিল সভ্যতার কাছে। ১৯৬৭ সালে ব্রিটিশ জীববিজ্ঞানী ডেসমন্ড মরিস তার ‘দ্য নেকেড এপ’ গ্রন্থে স্ত্রী-যৌনসুখের জৈবিক স্বরূপকে ব্যাখা করেন। অসংখ্য গবেষণা শুরু হয় চিকিৎসাবিজ্ঞান থেকে শুরু করে সমাজবিদ্যা ও মনোবিদ্যার অঙ্গনে। তা সত্ত্বেও আজ পর্যন্ত নারী-অর্গ্যাজমের বিষয়টা রহস্যময় হিসেবেই রয়ে গিয়েছে পুরুষ পৃথিবীর কাছে।

লিথুয়ানিয়ার ফোটোগ্রাফার অ্যালবার্ট পোসেজ নিজের আগ্রহেই অধ্যয়ন করেছেন বায়োলজি এবং ফিজিক্যাল কালচার। তার পরে তিনি এই দুই বিষয়কে একত্র করে নারী অর্গ্যাজমের স্বরূপকে ক্যামেরাবন্দি করতে উদ্যোগী হন। তাঁর ‘নারী-রতিসুখসার চিত্রমালা’ ইতিমধ্যেই ঝড় তুলেছে কলারসিক মহলে। মডেলদের মুখের প্রতিটি পেশির সংকোচন-প্রসারণকে অ্যালবার্ট তাঁর নির্দেশ-সাপেক্ষ রাখেন। তাঁর ‘ফিমেল অর্গ্যাজম’ সিরিজের মধ্যে তিনি নারীর আত্মরতিকেই তুলে ধরেছেন।

মানবীচেতনাবাদীদের মতে, আত্মরতির মাধ্যমে অর্গ্যাজম উইমেন এমপাওয়ারমেন্ট-এর অন্যতম দিক। সেই বক্তব্যকেও মান্যতা দিচ্ছেন অ্যালবার্ট। তার তোলা ছবিতে প্রকৃতি, নারী, আলা-ছায়া, রহস্য এবং শিল্প একাকার হয়ে রয়েছে, যা শরীরী আবেদনের সীমাকে অতিক্রম করে যায়। দর্শককেও নিয়ে যায় রতিসুখসারের চরমতম বিন্দুর সমীপে।


মন্তব্য