kalerkantho


রাতের পার্টিতে মেয়ে শিক্ষার্থীদের অর্ধেকই যৌন হয়রানির শিকার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৫:০৮



রাতের পার্টিতে মেয়ে শিক্ষার্থীদের অর্ধেকই যৌন হয়রানির শিকার

নতুন এক ব্রিটিশ জরিপে বলা হয়েছে, মেয়ে শিক্ষার্থীরা রাতের কোনো পার্টিতে গেলে সেখান যৌন হয়রানির ঘটনা অতি সাধারণ বিষয়।

চ্যারিটি ড্রিঙ্কঅ্যাওয়ার ১৮-২৪ বছর বয়সী ২ হাজার নারী শিক্ষার্থীর ওপর জরিপ চালায়।

এদের অর্ধেকেরও বেশি, প্রায় ৫৪ শতাংশ জানান যে, তারা রাতের পার্টতে বাইরে গিয়ে যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছেন।   আপত্তিকার স্থানে স্পর্শ করা বা মন্তব্য বা হয়রানির মাধ্যমে এসব কাজ করা হয়।

৫১ শতাংশ শিক্ষার্থী জানিয়েছে, তারা যতবার নাইটক্লাব, বার বা পাবে গিয়েছেন, প্রত্যেকবারই হয়রানির শিকার হয়েছেন। এদের মধ্যে ১৪ শতাংশ এমন অভিজ্ঞাতার শিকার হয়ে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন।

একে অংশের একেক অনুভূতির সৃষ্টি হয়। যৌন নির্যাতনের শিকার হলে ৭৪ শতাংশ বিরক্ত, ৬৩ শতাংশ ক্ষুব্ধ এবং ৪৪ শতাংশ ভয় পেয়ে যান। হয়রানির শিকার ৬৩ শতাংশ এ ঘটনার কথা কাউকে না কাউকে জানিয়েছেন। এ বিষয়ে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবস্থান সম্পর্কেও সচেতন নন তারা।

এর আগে টেলিগ্রাফের এক জরিপে জানানো হয়, ব্রিটেনের বিভিন্ন ক্যাম্পাসে মেয়ে শিক্ষার্থীদের প্রতি ৩ জনের একজন যৌন নিপীড়নের শিকার হন।

নতুন শিক্ষার্থীদের আগমনের মুহূর্তে এমন একটি জরিপ পরিচালিত হলো। অনেকের মতে, এর মাধ্যমে এ ঘটনাকে অনেকটা স্বাভাবিক বলে প্রকাশ করা হয়েছে।

নিজের অভিজ্ঞতার বয়ান দিয়েছেন এক শিক্ষার্থী কেট। জানান, নতুনদের আগমনের সপ্তাহের শেষ দিনটিতে আমি ও আমার বন্ধুরা একটি ক্লাবে গিয়েছি। তাদের সঙ্গে দারুণ সময় কাটছিল। ছেলেরা ঠিক করলো, মজা করে তারা গায়ের শার্ট ছিড়ে ফেলে ওপরের দিকে ছুঁড়ে দেবে। তাদের কাছাকাছি নাচছিলাম আমরা। হঠাৎ করেই তারা ঠিক করলো, তাদের সঙ্গে আমার শার্টও ছিড়ে ফেলবে। তারা ঘটনাটি ঘটিয়ে ফেললো। আমার পরনে তখন একটা স্কার্ট আর ব্রা। দারুণ অস্বস্তিতে পড়ে যাই আমি। ছেড়া শার্ট নিয়ে আমি ওয়াশরুমে চলে যাই এবং কোনমতে তা গায়ে জড়ানোর চেষ্টা করি। এই প্রতিষ্ঠানের তৃতীয় বর্ষের মাথায় আমার এমন ঘটনা ঘটলো। আমি রীতিমতো ক্ষুব্ধ।

বেন বাটলার নামের একজন বলেন, অ্যালকোহল খেয়েই যে এমন করতে হবে তা ঠিক নয়। এ ছাড়া নাইট ক্লাব মানেই নারীদের যৌন হয়রানি করা নয়। প্রত্যেকের জীবনের এমন ঘটনা শেয়ার করা উচিত।

গত মাসে টিইউসি এক জরিপে জানায়, ১৮-২৪ বছর বয়সী দুই-তৃতীয়াংশ নারী কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানির শিকার হয়ে থাকেন। অ্যাকশনএইড ইউকে আরেক জরিপে জানায়, শহুরে নারীদের তিন-চতুর্থাংশই যৌন হয়রানির শিকার হন।

কোনো শিক্ষার্থী প্রতিষ্ঠানের অনুষ্ঠান বা ক্যাম্পাসে হয়রানির শিকার হলে যা করবেন-  

১. যা ঘটেছে, হয়রানিমূলক কথা ও আচরণের কথা বিস্তারিত লিখে রাখুন। ঠিক যে যে শব্দ নিপীড়নকারী ব্যবহার করেছে তা মনে রাখার চেষ্টা করুন।

২. আপনাকে হয়রানি করতে কেউ দেখেছে, এমন মানুষকে খুঁজে বের করুন। কোনো বন্ধু সঙ্গে থাকলে সে প্রত্যক্ষদর্শী হতে পারবেন। তারাও এমন ঘটনার শিকার হলে আপনি তাদের প্রত্যক্ষদর্শী হবেন।

৩. প্রতিষ্ঠানের কর্তৃপক্ষকে এবার বিষয়টি জানান। বিশেষ করে সিনিয়ন ম্যানেজার বা বিভাগীয় প্রধানের সঙ্গে কথা বলুন। এতে কাজ না হলে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে যান।

৪. প্রতিষ্ঠানের নিয়ম অনুযায়ী এ বিষয়ে অভিযোগ দাখিল করুন।   সূত্র : টেলিগ্রাফ

 


মন্তব্য