kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


আইএস-বিরোধী যুদ্ধে 'শহীদ' হলেন কুর্দিশ 'অ্যাঞ্জেলিনা জোলি'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১২:৫০



আইএস-বিরোধী যুদ্ধে 'শহীদ' হলেন কুর্দিশ 'অ্যাঞ্জেলিনা জোলি'

এক নারী যোদ্ধা। তার নাম আসিয়া রামাজান আন্তর, কুর্দিশ 'অ্যাঞ্জেলিনা জোলি' নামে সমধিক পরিচিত।

আইএস এর সঙ্গে যুদ্ধে তিনি নিহত হয়েছেন বলে এক প্রতিবেদনে জানানো হয়।

দারুণ সুন্দরী তিনি। সোশাল মিডিয়ার কল্যাণে এই যোদ্ধা নারীকে অনেকেই দেখেছেন। অসংখ্য মানুষ তাকে হলিউড তারকা বলে মন্তব্য করেছেন। অনেকেই বলছেন, কুর্দিশ অ্যাঞ্জেলিনা জোলি তিনি। সিরিয়ান-তুরস্ক সীমান্তের কাছাকাছি মিনবিক শহরে আইএস এর সঙ্গে এক সংঘর্ষে নিহত হয়েছেন তিনি। এই সীমান্তে সম্প্রতি আইএস তার কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠা করেছে।

'উই ওয়ান্ট ফ্রিডম ফর কুর্দিস্তান' নামের এক ফেসবুক পেইজে এই প্রিয়মুখের মৃত্যুর খবর জানিয়ে দেওয়া হয়। ৩১ আগস্ট তারিখে ২২ বছর বয়সী এই যোদ্ধার মৃত্যু ঘটেছে। সেখানে বলা হয়, 'মিনবিক শহরের কাছে আইএস এর সঙ্গে যুদ্ধে শহীদ হয়েছেন তিনি। '

ফেসবুকে যারা মন্তব্য করেছেন তারা সবাই আন্তরকে একজন 'বীরাঙ্গনা' ও 'শহীদ' হিসাবে তুলে ধরেন।

জে গ্যাডি পিলার মেরিনো নামের একজন লিখেছেন, ঈশ্বর তার মঙ্গল করুন। কুর্দিদের ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য তার স্মৃতি বীরত্বগাথা হয়ে থাকুক।

ডি মরিসন লিখেছেন, হৃদয়বিদরক এক খবর এটি। কি অনুপ্রেরণাই না দিয়ে গেলেন এই নারী।

জ্যান রবিনসন লিখেছেন, আরআইপি আসিয়া। দায়েশ (আইএস) এর বিরুদ্ধে তোমার যুদ্ধ গোটা বিশ্বের নারীদের এক প্রতীক হয়ে থাকবে।

ইরান ফ্রন্ট পেজ আন্তরের পরিচয় তুলে ধরেছে। তারা লিখেছে, তার জন্ম হয় কামিশলিতে। উত্তর-পশ্চিম সিরিয়ার একটি শহর যা তুরস্ক-সিরিয়ার সীমান্তবর্তী। কুর্দিশ মিলিটারি অর্গানাইজেশনের 'ওমেনস প্রোটেকশন ইউনিটস' এ ২০০৪ সালে যোগ দেন তিনি। আইএস এর বিরুদ্ধে বেশ কয়েকটি যুদ্ধে অংশ নিয়েছেন তিনি।

সংস্থাটি ওয়াইপিজে নামে পরিচিত। এটি নারী যোদ্ধাদের নিয়ে গঠিত হয়েছে। এরা সিরিয়ান রিজিয়ন অব কুর্দিস্তানের আর্মড ফোর্স হিসাবে আত্মপ্রকাশ করে। এসব তথ্য কুর্দিশ প্রজেক্ট প্রকাশ করে।
সূত্র : হাফিংটন পোস্ট

 


মন্তব্য