kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিশ্বের সবচেয়ে ঝাল মরিচ খাওয়ার পর যা হলো দুই তরুণীর! (ভিডিওসহ)

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ১৯:১৩



বিশ্বের সবচেয়ে ঝাল মরিচ খাওয়ার পর যা হলো দুই তরুণীর! (ভিডিওসহ)

মরিচের নাম ‘ক্যারোলিনা রেড পেপার’। বিশ্বের সবচেয়ে ঝাল মরিচ।

এতটুকু শুনে বিষয়টা খুব কঠিন মনে না ও হতে পারে। কিন্তু, ক্যারোলিনার ঝালের মাত্রা জানলে আপনি ঝেড়ে দৌড় দিতে বাধ্য। ‘ক্যারোলিনা’র ঝালের মাত্রা অন্য সব মরিচর থেকে ৩০ হাজার গুণ বেশি এবং বিশ্বের সবচেয়ে ঝাল সস বলে খ্যাত ‘ট্যাবাসকো সস’-এর থেকে ৩০০ গুণ বেশি ঝাল। এটা খেলে মানুষের প্রাণহানি ঘটতে পারে।

এই বোকামী করে বসলেন দুই সুন্দরী। একজনের নাম লিজ্জি ওয়ার্স্ট। বয়স ১৮। অন্য জন স্যাবরিনা স্টুয়ার্ট। বয়স ২২। দু’জনেই একটি চ্যালেঞ্জ নিয়েছিলেন। কিন্তু, সেই চ্যালেঞ্জ এতটাই ভয়ঙ্কর ছিল যে ,সহজে কেউ তা নিতে রাজি হবেন না। লিজ্জি ও স্যাবরিনার চ্যালেঞ্জ ছিল বিশ্বের সবচেয়ে ঝাল মরিচ খাওয়ার। লিজ্জি ও স্যাবরিনা রীতিমতো ভিডিও শ্যুটিং করে শুরু করেছিলেন মরিচ খেতে। দু’জনেরই কেউই পুরো মরিচ মুখে দিতে না দিতেই চিৎকার শুরু করলেন। স্যাবরিনা হাত থেকে আধ খাওয়া মরিচটাই ছুঁড়ে ফেলেন। লিজ্জি যেটুকু  চিবিয়ে মুখে রেখেছিলেন তার সবটাই ফেলে দেন। কিন্তু, মরিচর ঝাল ততক্ষণে গ্রাস করেছে তাঁদেরকে।

চোঁখ দিয়ে পানি বেরিয়ে আসে লিজ্জির। ঝালে মুখ লাল হতে থাকে। লিজ্জি পরে জানান, মনে হচ্ছিল মুখ, বুকের ভিতর সমস্তটা জ্বলে-পুড়ে খাক হয়ে যাচ্ছে। স্যাবরিনার অবস্থা আরও মারাত্মক হয়। তিনি শ্বাসকষ্টে ভুগতে শুরু করেন। ইনহেলার নিতে থাকেন। তাতে তার শারীরিক সঙ্কট কাটেনি। শেষমেশ বেডে শুইয়ে রেখে তার নাকে অক্সিজেনের নল ঢোকাতে হয়। লিজ্জি পরে জানিয়েছেন, দুধ খেয়ে পরে ঝালের কব্জা থেকে মুক্তি পান। কিন্তু, ঝালের প্রভাব এতটাই ছিল যে প্রথমে দুধ খেয়েও কিছু হচ্ছিল না। অনেকটা সময় পর দুধের মধ্যে থাকা মাখন কাজ শুরু করলে ঝালের উপর প্রলেপ পড়ে।

আপাতত, সুস্থ আছেন লিজ্জি এবং স্যাবরিনা। আগামীদিনে তারা এমন চ্যালেঞ্জ নেবেন না বলেই জানিয়েছেন। অন্য চ্যালেঞ্জ নিতে পারেন কিন্তু ক্যারোলিনাকে চ্যালেঞ্জ জানানোর মতো সাহস তাদের শরীরে আর নেই।

পৃথিবীর সবচেয়ে ঝাল মরিচ

দেখুন সেই ভিডিও :


মন্তব্য