kalerkantho


প্রচণ্ড ক্ষমতাধর 'নিউক্লিয়ার ক্লাব' বিষয়ে ৯ তথ্য জেনে নিন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ এপ্রিল, ২০১৬ ১৩:৫০



প্রচণ্ড ক্ষমতাধর 'নিউক্লিয়ার ক্লাব' বিষয়ে ৯ তথ্য জেনে নিন

যেসব দেশের অত্যন্ত বিপজ্জনক পারমাণবিক অস্ত্রভাণ্ডার রয়েছে তাদের অনানুষ্ঠানিকভাবে ‘নিউক্লিয়ার ক্লাব’-এর সদস্য বলা হয়। ১৯৬৮ সালে পারমাণবিক বোমা সীমিত রাখার জন্য একটি চুক্তি করা হয়।

এ চুক্তির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পারমাণবিক বোমার প্রযুক্তি গোপন রাখে এর মালিকেরা। তবে এর পরেও নানাভাবে কয়েকটি দেশ পারমাণবিক বোমার মালিক বনে গিয়েছে। এ লেখায় রয়েছে সে বিষয়ে কয়েকটি তথ্য।
১. আট বা নয়টি সদস্যের হাতে রয়েছে ১৫,৬০০ পারমাণবিক বোমা
বর্তমানে পারমাণবিক বোমা রয়েছে এমন দেশের সংখ্যা আট বা নয়টি। এ দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, ফ্রান্স, চীন, যুক্তরাজ্য, ভারত, পাকিস্তান ও উত্তর কোরিয়া। ইসরায়েলের হাতে পারমাণবিক বোমা রয়েছে কি না, এ বিষয়টি তারা গোপন রেখেছে।
২. পাঁচটি দেশে রয়েছে বিদেশি পারমাণবিক বোমা
বিশ্বের পাঁচটি দেশে রয়েছে মার্কিন পারমাণবিক বোমা। এ দেশগুলো হলো বেলজিয়াম, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, ইতালি ও তুরস্ক।
৩. পামাণবিক অস্ত্র নিষ্ক্রিয় করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা
দক্ষিণ আফ্রিকা ১৯৬০ থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত পারমাণবিক অস্ত্রে উৎসাহী ছিল। পরবর্তীতে সরকার পরিবর্তনে তারা এক্ষেত্রে আগ্রহ হারিয়ে ফেলে। জানা যায়, ইসরায়েলের সহায়তায় তারা পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করেছিল। পরবর্তীতে নেলসন ম্যান্ডেলার নেতৃত্বাধীন আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস সরকার পারমাণবিক অস্ত্রগুলো নিষ্ক্রিয় করে ফেলে।
৪. ৫৯টি দেশ পারমাণবিক অস্ত্র নির্মাণে সক্ষম
বিশ্বের যেসব দেশের হাতে পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে, তারাই শুধু যে পারমাণবিক অস্ত্র নির্মাণে সক্ষম, তা নয়। আরও বহু দেশ পারমাণবিক অস্ত্র নির্মাণ করতে পারলেও তারা তা করছে না। এক্ষেত্রে ৫৯টি দেশ এ অস্ত্র তৈরি করতে সক্ষম বলে জানা গেছে। এ দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা, আর্জেন্টিনা, মেক্সিকো, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া, ভিয়েতনাম, জাপান, উজবেকিস্তান, অস্ট্রিয়া, বেলারুশ, বেলজিয়াম, চেক রিপাবলিক ও জার্মানি।
৫. ট্রিলিয়ন ডলার ব্যয়বহুল ব্যবসা
পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করতে এবং তা চালু রাখতে প্রতি বছর প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে হয় বিভিন্ন দেশকে। এটি শীতল যুদ্ধ শেষ হওয়ার পরও বাস্তবতা। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ পারমাণবিক বোমা তৈরি করতে বিপুল অর্থ বিনিয়োগ করছে।
৬. ২০২০ সালে পাকিস্তানের থাকবে বিশ্বের তৃতীয় পারমাণবিক অস্ত্রভাণ্ডার
পাকিস্তান বর্তমানে পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করার জন্য ব্যাপক উদ্যোগ নিয়েছে। প্রতি বছর পাকিস্তান ২০টি পর্যন্ত পারমাণবিক বোমা তৈরি করছে বলে জানা যায়। এক রিপোর্টে জানা যায়, পাকিস্তানের সাড়ে তিনশ পারমাণবিক বোমা থাকতে পারে। ২০১৫ সালে পাকিস্তান ৫৬০ মাইল দূরত্বে পারমাণবিক অস্ত্র বহনে সক্ষম ব্যালিস্টিক মিসাইল পরীক্ষা করেছে।

৭. পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ চুক্তি কার্যত ব্যর্থ
পারমাণবিক বোমা সীমিত রাখার জন্য করা পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ চুক্তি কার্যত ব্যর্থ হয়েছে। এ চুক্তির পর ১৯৯৮ সালে ভারত ও ২০০৩ সালে পাকিস্তান পারমাণবিক বোমা তৈরি করে। উত্তর কোরিয়া এ চুক্তি থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নেয় এবং পারমাণবিক বোমা তৈরি করে।
৮. বিশ্বের যে কোনো স্থানে পারমাণবিক হামলার সক্ষমতা রয়েছে দুটি দেশের
বিশ্বের শুধু দুটি দেশই যে কোনো স্থানে পারমাণবিক বোমা হামলা চালাতে পারে। যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়ার হাতে রয়েছে আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালেস্টিক মিসাইল। এগুলো বিশ্বের যে কোনো স্থানে আঘাত হানতে পারে।
৯. উত্তরাধিকার সূত্রে পারমাণবিক বোমা পেয়েছিল তিনটি দেশ
বেলারুশ, কাজাখস্তান ও ইউক্রেন সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছ থেকে আলাদা হয়ে যাওয়ার সময় উত্তরাধিকার সূত্রে বেশ কিছু পারমাণবিক বোমা পেয়েছিল। তবে তারা বোমাগুলো রাশিয়াকে ফেরত দিয়ে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণ চুক্তিতে স্বাক্ষর করে।


মন্তব্য