kalerkantho

রবিবার। ২২ জানুয়ারি ২০১৭ । ৯ মাঘ ১৪২৩। ২৩ রবিউস সানি ১৪৩৮।


সাধারণ বেদনানাশক ওষুধ করতে পারে জীবননাশ

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৯ মার্চ, ২০১৬ ১২:৫১



সাধারণ বেদনানাশক ওষুধ করতে পারে জীবননাশ

নন-স্টেরোইডাল অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি ড্রাগস (এনএসএআইডি) প্রায়ই ব্যবহৃত হয় বেদনানাশক হিসাবে। নতুন এক গবেষণায় বলা হয়, ব্যথা দূর করতে যে পেইন কিলার খাওয়া হয় তা ধীরে ধীরে আপনাকেই মৃত্যুর দিকে ঠেলে নিতে পারে।

ডেনমার্কের আরহাস ইউনিভার্সিটির গবেষক মর্টেন শ্যুমিত জানান, পেইন কিলার এমনিতেই স্বাস্থ্যের জন্যে ক্ষতিকর। কিন্তু নতুন ধাঁচের এনএসএআইডি ড্রাগসগুলো মারাত্মক ক্ষতি বয়ে আনতে পারে। কক্স-২ নামে পরিচিত ওষুধগুলো হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়ায়। এ কারণে এই ওষুধগুলো দ্বিতীয়বারের মতো বিশ্বের বিভিন্ন বাজার থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। তবে এখনো পুরনো কিছু এনএসএআইডি রয়ে গেছে। যেমন- ডাইক্লোফেনাক। এটি হার্ট অ্যাটাকের অন্যতম কারণ হয়ে দেখা দেয়।

ইউরোপিয়ান হার্ট জার্নালে প্রকাশিত এই গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয়, আথ্রাইটিসের জন্যে ব্যবহৃত ওষুধ হৃদরোগীদের জন্যে মারাত্মক ক্ষতিকর। আথ্রাইটিসের পুরনো সময়ের ওষুধ একইরকম। কিন্তু তখন এ বিষয়ে কোনো গবেষণা হয়নি।

এ গবেষণায় ইউরোপের ১৪টি বিশ্ববিদ্যালয় এবং হাসপাতালের বিভিন্ন গবেষণাপত্র বিশ্লেষণ করা হয়। এসব গবেষণায় স্পষ্টভাবে বলা হয়, এনএসএআইডি ড্রাগগুলো হার্টের জন্যে মারাত্মক হুমকি। কাজেই এসব ওষুধ প্রেসক্রিপশনে লেখার আগে চিকিৎসকরা অবশ্যই রোগীর হার্টের অবস্থা পরীক্ষা করে নিতে হবে।

হৃদযন্ত্রের জন্যে মারাত্মক ক্ষতিকর- এ তথ্যটি প্রকাশ করেই এসব ওষুধ বিক্রি করার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। এনএসএআইডি ড্রাগস কখনোই অ্যান্টিবায়োটিক নয়। কাজেই এরা ব্যাকটেরিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ করে সংক্রমণ দূর করে না। সাধারণত পেশি এবং হাড়ের ডিসঅর্ডার সিস্টেম দূর করতে ওষুধগুলো ব্যবহৃত হয়।
সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস

 


মন্তব্য