kalerkantho

শুক্রবার । ২০ জানুয়ারি ২০১৭ । ৭ মাঘ ১৪২৩। ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮।


ভিটামিন ডি পেতে কতটুকু সূর্যের আলো প্রয়োজন?

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৭ মার্চ, ২০১৬ ১৫:৩৩



ভিটামিন ডি পেতে কতটুকু সূর্যের আলো প্রয়োজন?

রোদের তাপ থেকে বাঁচতে অনেক কিছুই করা হয়। চোখে সানগ্লাস, মাথায় ক্যাপ বা স্কার্ফ আর ত্বকে সান স্ক্রিন লাগিয়ে বাসা থেকে বের হন সবাই। তারপর অফিসে বা বাসায় ঢুকে এগুলো খুলে নেওয়া হয়। অথচ এর মধ্যে আপনি অতি গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন ডি হারালেন।

যদিও অতিমাত্রায় সূর্যরশ্মিতে ত্বকের ক্যান্সারের ঝুঁকি থাকে। এটা ভুলে গেলে চলবে না। কিন্তু এ ভিটামিনের অভাবে দেহ তার গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো করতে পারে না। ভারত উপমহাদেশের মানুষের দেহে ভিটামিন ডি'র যথেষ্ট ঘাটতি রয়েছে।

স্কিন অ্যালাইভ ক্লিনিকের বিশেষজ্ঞ ড. চিরঞ্জীব চাবরা জানান, আধুনিক যুগে সূর্যরশ্মিকে দারুণ ক্ষতিকর বলে প্রচারণা চালানো হয়। কিন্তু যতটুকু প্রয়োজন ততটুকু রশ্মি না গ্রহণ করলে বিপদ।

এখন প্রশ্ন হলো, আমাদের কতটুকু সূর্যরশ্মি প্রয়োজন?
সূর্যের ইউভি-বি রশ্মি ভিটামিন ডি'র সবচেয়ে কার্যকর উৎস। এই রশ্মি দুপুরের দিকে সবচেয়ে বেশি শক্তিশালী থাকে। কাজেই এ সময়েই ভিটামিন ডি বেশি মিলবে। এ ছাড়া সকাল ও বিকালের রশ্মিও বেশ কাজের। স্বাভাবিক ত্বক সপ্তাহে ৩-৪ বার ২০ মিনিট করে সূর্যরশ্মিতে থাকলে প্রয়োজনীয় ভিটামিন ডি মেলে।

ফোর্টিস হসপিটাল কালিয়ানের ডার্মাটোলজিস্ট ড. রূপালি নানজাপা জানান, দেহের অন্তত ১৮ শতাংশ সূর্যতে উন্মুক্ত রাখতে হবে। আর সকাল ১১টা থেকে দুপুর ২টার মধ্যে সূর্যরশ্মি গ্রহণ করতে পারলে সর্বাধিক উপকার মিলবে। সপ্তাহে ৩ দিন এবং প্রতিদিন ৩০ মিনিট করে রোদ পোহানো জরুরি। তাই বলে রোদে স্থির হয় দাঁড়িয়ে থাকতে হবে না। এতে ত্বক পুড়ে যেতে পারে। হাঁটাচলার মাঝেই ভিটামিন ডি সংগ্রহ করুন। ত্বকে জ্বলুনি হলে সেখানে অ্যালোভেরা বা ল্যাকটো ব্যবহার করতে পারেন।

ভিটামিন ডি'র জন্যে আলাদা খাবার আছে কি?
এমন কোনো খাবার নেই যা ভিটামিন ডি দেয়। কেবলমাত্র খাবার থেকে গুরুত্বপূর্ণ এই ভিটামিন সংগ্রহের কোনো উপায় খুঁজে পাননি বিজ্ঞানীরা। তবে কিছু খাবারে কিছুটা উপকার পেতে পারেন। দুধ, পনির, মাশরুম, আলমন্ড দুধ, কড লিভার তেল ইত্যাদি খেতে পারেন।

ভিটামিন ডি কেন দরকার?
ত্বকের স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে এই ভিটামিন অতি জরুরি। ত্বকে একনি, একজিমা এবং ছত্রাক সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচায় সূর্যরশ্মি। ত্বকের প্রাকৃতিক রং ঠিক রাখতেও ভিটামিন ডি অতি প্রয়োজনীয় উপাদান। ভিটামিন ডি ত্বকের গভীরে প্রবেশ করে এবং রক্তবাহী নালীগুলো পরিষ্কার করে দেয়। রক্তে অক্সিজেন প্রবাহের পরিমাণও বৃদ্ধি করে এটি। আবার টিস্যুতে অক্সিজেনের সরবরাহ বৃদ্ধির ব্যবস্থা করে এই ভিটামিন। ফিটনেস ধরে রাখতে এবং পেশি গঠনেও কাজ করে ডি ভিটামিন। এর জন্যে রক্তের শ্বেত কণিকার পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ে। শিশুদের নিয়মিত সূর্যের আলোতে নিলে তাদের বৃদ্ধি ভালো হয়।

ভিটামিন ডি-এর অভাবে নানা স্বাস্থ্য সমস্যায় ভোগে মানুষ। বিশেষ করে শহুরে মানুষদের দুর্বল হাড়, চুল পড়ে যাওয়া, দুর্বলতা এবং বিষণ্নতা দেখা দেয়।

এটা পুরোপুরি নিরাপদ?
বেশ কয়েকজন বিশেষজ্ঞ সূর্যরশ্মিকে ক্ষতিকর বলেই মনে করেন। নিউ দিল্লির লুমিয়েরে ডার্মাটোলজির মেডিক্যাল ডিরেক্টর ড. কিরণ লোহিয়া জানান, সূর্যরশ্মিতে অ্যালার্জি, বলিরেখা পড়া এবং ত্বকে টান ধরা ইত্যাদি ঘটে। আর ক্যান্সারের বিষয়টিত রয়েছেই। তাই সূর্যরশ্মিতে না থেকে ভিটামিন ডি ট্যাবলেট খাওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।
সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া

 


মন্তব্য